একসঙ্গে পাঁচ ছবি হাতছাড়া দীঘির

0
71
একসঙ্গে পাঁচ ছবি হাতছাড়া দীঘির

খবর৭১ঃ শিশুশিল্পী হিসেবে যত সহজে সফলতা পেয়েছিলেন, নায়িকা হিসেবে সেই পথটা ততই কঠিন হয়ে উঠছে অভিনেত্রী প্রার্থনা ফরদীন দীঘির জন্য। কারণ, বছরের শুরুতেই তার ক্যারিয়ারে এলো বড় ধাক্কা। একসঙ্গে পাঁচ-পাঁচটি ছবির কাজ হাতছাড়া হয়ে গেল তারকা দ্ম্পতি সুব্রত ও দোয়েল-কন্যার। দীঘিকে নিয়ে এই পাঁচটি ছবি নির্মাণ করতে চেয়েছিল শাপলা মিডিয়া।

তবে বর্তমান খবর হলো, সবগুলো ছবিই হাতছাড়া হয়ে গেছে দীঘির। যদি এ ব্যাপারে শাপলা মিডিয়ার কর্ণধার সেলিম খান গণমাধ্যমে কোনো কথা বলতে নারাজ। দীঘির হাতছাড়া হওয়া পাঁচটি ছবির একটি হলো ‘যোগ্য সন্তান’। এখানে নায়ক হিসেবে অভিনয় করার কথা ছিল প্রযোজক সেলিম খানের ছেলে শান্ত খানের। ছবিটি পরিচালনার দায়িত্ব পড়েছিল খ্যাতিমান নির্মাতা কাজী হায়াতের ওপর।

পাঁচ ছবি নিয়ে প্রযোজক সেলিম খান কিছু নাম বললেও মুখ খুলেছেন কাজী হায়াত। তিনি বলেন, ‘ওই ছবি আর হবে না। সাইনিংয়ের পরই ছবির কাজ বন্ধ হয়ে গেছে। যতদূর জানি, ওই সময়ে যে কয়টি ছবির সাইনিং ও ঘোষণা দেয়া হয়েছিল, তার সবগুলো প্রজেক্ট এখন বন্ধ।’

প্রসঙ্গত, এই শাপলা মিডিয়ারই ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই’ ছবিটি দিয়ে নায়িকা হিসেবে অভিষেক হতে চলেছে শিশুশিল্পী হিসেবে একাধিক জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়া দীঘির। এখানে তার নায়ক নবাগত শান্ত খান। ছবিটির কাজ শেষ, রয়েছে মুক্তির অপেক্ষা। এছাড়া ‘তুমি আছো-তুমি নেই’ নামে আরও একটি ছবির কাজও শেষ করেছেন অভিনেত্রী। হাতছাড়া হয়ে গেল বাকি পাঁচটি ছবি।

এদিকে গুজব রয়েছে, ওই ছবিগুলো থেকে নাকি দীঘিকে বাদ দেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে অভিনেত্রী বলেন, ‘মূলত একটি ছবি নিয়ে শাপলা মিডিয়ার সঙ্গে আমার চুক্তি হয়েছে। বাকিগুলো মুখে মুখে। বাদ দিতে হলে তো আগে চুক্তি হতে হবে। নইলে কীভাবে বাদ দেয়? বাকি সিনেমাগুলোর ব্যাপারে কোনো চুক্তি হয়নি। শুনেছি সিনেমাগুলো আর হবে না। তাহলে বাদ পড়ার কথা কেন আসছে?’

এই মুহূর্তে শাপলা মিডিয়ার ছবি নিয়ে খুব বেশি আগ্রহ নেই বলেও জানান দীঘি। তিনি বলেন, ‘আমার হাতে আরো অনেকগুলো সিনেমা এবং ওয়েব সিরিজ আছে। সেগুলোর ডেট দেশে ফিরেই দিব। আপাতত বঙ্গবন্ধু বায়োপিক ছাড়া অন্য কিছু নিয়ে ভাবছি না। এতো বড় একটা কাজের সঙ্গে যুক্ত হতে পেরে আমি সত্যি আনন্দিত। আমার আর কোনো চাওয়া নেই।’

জাতির জনকের বায়োপিক ‘বঙ্গবন্ধু’র চিত্রায়ণে বর্তমানে ভারতের মুম্বাই আছেন দীঘি। সেখানে দাদা সাহেব ফালকে স্টুডিওতে চলছে ছবিটির শুটিং। গত ২২ জানুয়ারি মুম্বাই যান দীঘি। ২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সেখানেই চলবে শুটিং। তারপর ফিরবেন দেশে। মার্চের শেষে আবারও যাবেন মুম্বাই। এর পরই শেষ হবে বায়োপিকে দীঘির অংশে কাজ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here