বেনাপোল বন্দরে আবারো বিপুল পরিমাণের ফেন্সিডিল ও ভায়াগ্রা জাতীয় ঔষধ উদ্ধার

0
25

শেখ কাজিম উদ্দিন, বেনাপোল : বেনাপোল বন্দরে আবারো বৈধ পণ্যের আড়ালে আসা বিপুল পরিমাণের আমদানি নিষিদ্ধ ফেন্সিডিল ও ভায়াগ্রাজাতীয় ট্রাবলেটসহ বিভিন্ন ধরণের ঔষধ উদ্ধার করেছেন কাস্টম। রবিবার (৭ আগষ্ট) বেলা ১ টার সময় ভারত থেকে বেনাপোল বন্দরে আসা আমদানিকৃত পণ্যবাহী ট্রাক (ডাব্লিউ-বি-৪১-ই-০৯১৮) হতে এ আমদানি নিষিদ্ধ মাদক ও ভায়াগ্রার চালনসহ ট্রাকটি আটক করেছেন কাস্টম হাউসের কর্মকর্তারা।

এর আগে গত ১৫ জুন রাতে বেনাপোল বন্দরের টার্মিনাল সড়ক থেকে ভারতীয় পণ্যবাহী একটি ট্রাক থেকে আমদানি নিষিদ্ধ ৭৪৯ বোতল ফেনসিডিল, ১৮৬ কেজি গাঁজা, বিপুল পরিমাণ বাজি, ঔষধ ও বিভিন্ন ধরণের পণ্যসামগ্রী উদ্ধার করেছিলো বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশ। যা বেনাপোল বন্দরে নিত্য-নৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় সাধু ব্যবসায়ীরা।
স্থানীয় কিছু আমদানি-রপ্তানিকারক ও কাস্টম সংশ্লিষ্ঠ ব্যবসায়ীরা বলেছেন, দীর্ঘকাল ধরে বৈধ পণ্যের আড়ালে কিছু অসাধু ব্যবসায়ীরা কাস্টম ও বন্দরের কতিপয় দূর্ণীতিবাজ কর্মকর্তাদের ব্যবহার করে তাদের সাথে যৌথ অবৈধ সিন্ডিকেট তৈরি করে ভারত থেকে এসকল আমদানি নিষিদ্ধ মাদক, ভায়াগ্রা, ঔষধসহ বিভিন্ন ধরনের প্রসাধনী এনে রাতারাতি কোটিপতি বনে যাচ্ছে। মাঝে মধ্যে এ অবৈধ সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীসহ সেসকল কর্মকর্তাদের সাথে ভাগ বাটোয়ারায় কমতি হলে মুখ ফসকে গোপন তথ্য ফাঁস হচ্ছে; অত:পর আটক হচ্ছে সামন্য কিছু অবৈধ পণ্যের চালান।
বেনাপোল কাস্টমস সুত্রে জানা যায়, ঢাকার আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান স্মার্ট লাইফ ফুটওয়্যার ইন্ডাস্ট্রিজ ঢাকা। গত ৬ আগষ্ট ৮৪০ প্যাকেজে মাইক্রোসেল পিটি নামে একটি পণ্য চালান আমদানি করে। যার মেনিফিস্ট নং-২৭২১০/১, আমদানি মূল্য ৩৭ হাজার মার্কিন ডলার (বাংলাদেশি ৩৪ লাখ ৫৫ হাজার টাকা)। পণ্য চালানটির রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান ভারতের রাজস্থানের এসএস ব্লুকেম ইন্ডাস্ট্রি।

রবিবার সকালে পণ্য চালানটি নিয়ে ভারতীয় ট্রাক (যার নং ডাব্লিউ-বি-৪১-ই-০৯১৮) বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করে। খালাসের জন্য রিসিভ করে বেনাপোলের সুজুতি এন্টারপ্রাইজ নামের একটি কাস্টমস ক্লিয়ারিং এন্ড ফরওয়ার্ডি (সিএন্ডএফ) এজেন্ট।
পরে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ পণ্যবোঝাই ট্রাকটি বন্দর থেকে কাস্টম হাউসে নিয়ে ত্রিপল খোলে এবং আমদানিকৃত পণ্যের সাথে ৫৯৯ বোতল ফেন্সিডিল এবং যৌন উত্তেজক ভায়াগ্রা জাতীয় বিভিন্ন ধরনের ২২ হাজার ৫১৮ পিস আমদানি নিষিদ্ধ ঔষধ পায়।

বেনাপোল কাস্টমস হাউসের যুগ্ম- কমিশনার আব্দুল রশীদ মিয়া জানান, দীর্ঘদিন ধরে একটি চক্র ভারত থেকে আমদানি পণ্যবাহী ট্রাকে এ ধরণের নিষিদ্ধ মালামাল পাঁচার করছে। গত ৩ মাসে এধরনের অনেকগুলো চালান আটক করা হয়েছে। এ বিষয়ে ভারতীয় ট্রাক চালক, আমদানিকারক এবং সিএন্ডএফ এজেন্টের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান তিনি।
স্থানীয়রা জানান, বেনাপোল বন্দরের চারিদিকে নিরাপত্তা বেস্টনীর সাথে সিসি ক্যামেরা আর বিভিন্ন সংস্থার নজরদারী থাকা সত্ত্বেও বৈধ পথে ভারতীয় ট্রাকে প্রতিদিনই আসছে মাদক, ভায়াগ্রাসহ বিভিন্ন ধরণের বড় বড় অবৈধ পণ্যের চালান। যার সাথে জড়িত ভারত-বাংলাদেশের পেট্রাপোল-বেনাপোল বন্দরের চোরাচালানী ব্যবসায়ীখ্যাত রাঘব বোয়ালরা এবং কাস্টম ও বন্দরের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তারা। এরা অবৈধ ব্যবসার সিন্ডিকেট তৈরি করে রমরমা ব্যবসা করে রাতারাতি কোটিপতি বনে যাচ্ছে। তাতে একদিকে সরকার হারাচ্ছে বিপুল পরিমাণের রাজস্ব আর মাদক ও ভায়াগ্রার অবাধ আগমনের করালগ্রাসে ধ্বংশ হচ্ছে এদেশের উঠতি বয়সের ছেলেমেয়েসহ যুব সমাজ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here