খুন নয়, আত্মহত্যা করেছেন অভিনেত্রী পল্লবী

0
69

খবর৭১ঃ রবিবার সকালে কলকাতার গড়ফার কে পি রায় লেনের ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার করা হয় টেলিভিশন অভিনেত্রী পল্লবী দে’র ঝুলন্ত মরদেহ। প্রেমিককে নিয়ে ওই ফ্ল্যাটে থাকতেন তিনি। তার মৃত্যু স্বাভাবিক নয় বলে দাবি করে আসছে পরিবার। তাদের ধরণা, পল্লবীকে খুন করা হতে পারে।

কিন্তু ময়নাতদন্তের রিপোর্ট বলছে ভিন্ন কথা। রবিবার পল্লবীর মরদেহ উদ্ধার করার পর সেটিকে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায় গড়ফা থানার পুলিশ। একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলাও করা হয়। এর কয়েক ঘণ্টা বাদে ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট থেকে জানা গেছে, পল্লবী আত্মহত্যাই করেছেন।

রবিবার সকালে অভিনেত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ যখন উদ্ধার করা হয়, তখন তার গলায় জড়ানো ছিল বিছানার চাদর। পুলিশ জানায়, পল্লবীর প্রেমিকই দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে তার দেহ দেখতে পান। এরপর পুলিশে খবর দেন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়।

কাঁটাপুকুর পুলিশ মর্গে হয়েছে পল্লবীর মরদেহের ময়নাতদন্ত। ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টে ইঙ্গিত, অভিনেত্রী আত্মহত্যাই করেছেন। যদিও পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত এখনও এ বিষয়ে মন্তব্য করতে নারাজ তদন্তকারীরা।

ঘটনার পরই পল্লবীর লিভ-ইন সঙ্গীকে গ়ড়ফা থানায় ডেকে নিয়ে দীর্ঘক্ষণ জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। রবিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ওই সঙ্গী থানাতেই ছিলেন বলে জানায় পুলিশ। পল্লবীর সঙ্গী একটি বেসরকারি সংস্থায় কাজ করেন।

পুলিশি জেরায় তিনি স্বীকার করেছেন, শনিবার রাতে দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়েছিল। রবিবারও অশান্তি হয়েছিল। এরপর কিছুক্ষণের জন্য বাইরে সিগারেট খেতে গিয়েছিলেন তিনি। ফিরে দেখেন দরজা ভেতর থেকে বন্ধ। পরে দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে তিনি পল্লবীর ঝুলন্ত দেহ দেখতে পান।

অন্যদিকে, পল্লবীর পরিবার খুনের দিকেই ইঙ্গিত করছে বার বার। পুলিশ সূত্রে খবর, সমস্ত দিকই খতিয়ে দেখা হচ্ছে। পল্লবী ও তার সঙ্গীর মধ্যে সম্পর্ক ইদানীং কেমন ছিল, কেন তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়েছিল ঘটনার আগে, সব বিষয়ই নিখুঁত ভাবে দেখতে চান তদন্তকারীরা।

ওপার বাংলায় ছোটপর্দার বেশ জনপ্রিয় মুখ ছিলেন পল্লবী দে। ‘রেশম ঝাঁপি’, ‘কুঞ্জছায়া’, ‘আমি সিরাজের বেগমে’র মতো টিভি ধারাবাহিকে অভিনয় করেছেন তিনি। বর্তমানে ‘মন মানে না’ নামে একটি ধারাবাহিকের মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করছিলেন পল্লবী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here