মান্দায় ‘ব্রকোলি’ চাষে সফল সিরাজুল

0
41

সুলতান আহমেদ, নওগাঁ প্রতিনিধিঃ কপি মানেই কৃষকরা বুঝতেন ফুলকপি বা বাঁধাকপি। তবে বিলেতি সবুজ ফুলকপি (ব্রকোলি) এখন ফলছে নওগাঁর মান্দাতে। ব্রকোলি মান্দা উপজেলার মানুষের কাছে একেবারেই নতুন সবজি। এমন একটি শীতকালীন সবজি ফলিয়ে এলাকাবাসীকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন মান্দা উপজেলার গনেশপুর ইউনিয়নের শ্রীরামপুর গ্রামের বাসিন্দা খাজামুদ্দীন খাঁনের পুত্র সিরাজুল ইসলাম খাঁন (৩৫)।

জানা গেছে, ‘ব্রকোলি ক্রসিফেরী গোত্রের অন্তর্ভুক্ত শীতকালীন সবজি। এতে ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, ফোলেট ও আঁশ রয়েছে। এই সবজি হৃদরোগ, বহুমূত্র এবং ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। ব্রকোলি জারণরোধী ভিটামিন এ এবং সি সরবরাহ করে কোষের ক্ষতিরোধ করে। দিনে মাত্র ১০০ গ্রাম ব্রকলি শরীরে প্রতিদিনের ভিটামিন সি এর চাহিদার ১৫০% পূরণ হতে পারে।

ব্রকোলি চাষি সিরাজুল ইসলাম জানান, তিনি গত ৭/৮ বছর থেকে বিভিন্ন ধরনের শাক সবজি চাষ করেন। তার এক আত্মীয়ের চিকিৎসার জন্য পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে গিয়ে তিনি ব্রকোলি নামের এই সবজিটি দেখেন। এবছর তিনি ফুলকপি, বাঁধাকপি, টমেটো, ওলকপি, হাইব্রিড বেগুন সহ বিভিন্ন ধরনের সবজির পাশাপাশি পরীক্ষামূলক ভাবে ৩শত টাকার ব্রকোলি বীজ নিয়ে এসে ৮ শতাংশ জমিতে রোপন করেন। ব্রকোলি ছাড়াও পরীক্ষামূলক ভাবে ৬০পিস স্কোয়াস ও কয়েক শতক জমিতে লাল বাঁধাকপির (রেড ক্যাবেজ) চাষ করেছেন। আগামীতে বৃহৎ পরিসরে এসব বিদেশী সবজি চাষ করবেন বলেও তিনি জানান।

তিনি আরও জানান, ব্রকোলি এই এলাকার মানুষের কাছে একেবারেই নতুন। নতুন সবজি হওয়ায় প্রতি পিস ব্রকোলি ১৫ থেকে ২০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। তবে অনেকেই আগ্রহী হয়ে এই সবজি ক্রয় করছে। ব্রকোলির পুষ্টিগুণ খুবই ভালো। এটির গুণাগুণ সম্পর্কে মানুষকে ধারণা দিতে পারলে এর চাহিদা বাড়বে। এই সবজি চাষের খরচও সীমিত। বৃহৎ পরিসরে চাষ করা গেলে লাভবান হওয়া যাবে।

মান্দা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শায়লা শারমিন বলেন, বর্তমানে দেশে ব্রকোলি সহ সব ধরনের বিদেশি সবজির চাহিদা বাড়ছে। আমার জানামতে মান্দা উপজেলাতে এর আগে কেউ ব্রকোলি চাষ করেনি। আমরা বিভিন্ন ধরনের বিদেশি সবজি চাষে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করছি। এসব বিদেশি সবজি চাষ কৃষকদের মধ্যে কীভাবে ছড়িয়ে দেয়া যায় সে ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here