আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ ঘোষণা সৌদির

0
50
আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ ঘোষণা সৌদির

খবর৭১ঃ বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া নভেল করোনাভাইরাসের নতুন ধরন শনাক্ত হওয়ায় আন্তর্জাতিক রুটে এক সপ্তাহের জন্য বিমান চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে সৌদি আরব। এছাড়া প্রাণঘাতী ভাইরাসটির সংক্রমণ রোধে স্থল ও সমুদ্রবন্দরের সকল প্রবেশও বন্ধ করা হয়েছে।

রবিবার নিষেধাজ্ঞার এই খবর দেয়া হয়। তবে সৌদি আরবে অবস্থানকারী আন্তর্জাতিক ফ্লাইটগুলো এই নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকবে না। খবর এএফপির।

সৌদির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা- এসপিএর খবরে বলা হয়েছে, এক সপ্তাহের জন্য বিশেষ ক্ষেত্র ছাড়া সকল আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ করা হলো। বন্ধের এই সময়সীমা পরবর্তী সপ্তাহে বাড়ানোও হতে পারে বলে খবরে বলা হয়েছে। তবে বর্তমানে সৌদি আরবে অবস্থানকারী আন্তর্জাতিক ফ্লাইটগুলো এই নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়বে না। ফ্লাইটগুলো সৌদি ছেড়ে যেতে পারবে।

স্থল ও সমুদ্রবন্দরে প্রবেশও এক সপ্তাহ বন্ধ থাকবে। পরবর্তী সপ্তাহে এই নিষেধাজ্ঞা আরও বৃদ্ধি করা হতে পারে বলে এসপিএর খবরে বলা হয়েছে।

করোনাভাইরাসের অধিক সংক্রামক নতুন একটি ধরন যুক্তরাজ্যে পাওয়ার পর রবিবার ইউরোপের একাধিক দেশ যুক্তরাজ্যের ফ্লাইটের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। আরও কিছু দেশ নিষেধাজ্ঞার কথা বিবেচনা করছে। ব্রিটিশ সরকার জানিয়েছে, নতুন এই ধরনটি ‘নিয়ন্ত্রণের বাইরে।’

গত সপ্তাহে সৌদিতে ফাইজার-বায়োএনটেকের ভ্যাকসিন পৌঁছানোর পর তিন ধাপ বিশিষ্ট করোনাভাইরাস টিকাদান প্রকল্প শুরু হয়েছে। সৌদি আরবের প্রতিবেশি দেশ কুয়েতও রবিবার ব্রিটিশ ফ্লাইটের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

গত ৮ ডিসেম্বরের পর কেউ ইউরোপের কোনো দেশ থেকে কিংবা যেসব দেশে নতুন সংক্রমণ শুরু হয়েছে সেখান থেকে সৌদিতে এসে থাকলে তাদেরকে ১৫ দিনের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে বলে বলা হয়েছে।

করোনা নিয়ে নিয়মিত আপডেট দেয়া ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের দেয়া তথ্যমতে সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৭ কোটি ৭১‌ লাখ ৬৭ হাজার ২৭ জন। একই সময়ে করোনায় মারা গেছেন ১৬ লাখ ৯৯ হাজার ৪৯৮ জন। আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৫ কোটি ৪০ লাখ ৮৫ হাজার ৯৭৩ জন।

আর সৌদি আরবে এখন পর্যন্ত ৩ লাখ ৬১ হাজারের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ৬ হাজার ১২২ জন। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৩ লাখ ৫১ হাজার ৮৭৮ জন করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here