ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিল সংসদে

0
44
ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিল সংসদে

খবর৭১ঃ ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে জারি করা অধ্যাদেশ আইনে পরিণত করতে সংসদে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) বিল-২০২০ উত্থাপন করা হয়েছে।

রবিবার মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বিলটি উত্থাপন করা হয়। পরে তা পরীক্ষা করে সাত দিনের মধ্যে সংসদে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়।

এর আগে এ সংক্রান্ত অধ্যাদেশ সংসদে তোলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। যে কোনো অধ্যাদেশ জারির পর সংসদের প্রথম বৈঠকে তা উত্থাপনের বিধান রয়েছে। গত ১২ অক্টোবর মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের পর রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ পরের দিনই ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) অধ্যাদেশ-২০০০’ জারি করেন।

সম্প্রতি দেশজুড়ে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন ঘটনা বেড়ে যাওয়ায় সাধারণ মানুষ ধর্ষণকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করার দাবি তোলে। পরে মন্ত্রিসভায় মৃত্যুদণ্ডের বিধান অনুমোদন হলে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) অধ্যাদেশ-২০০০’ জারি করেন। কোনও অধ্যাদেশ জারির পর সংসদের প্রথম বৈঠকে তা উপস্থাপনের বিধান রয়েছে।

ওই সময় সংসদ অধিবেশন ছিল। বিধায় মুজিববর্ষ উপলক্ষে শুরু হওয়া সংসদের এই বিশেষ অধিবেশনে বিলটি উত্থাপন করা হয়।

২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯(১) উপধারায় বলা ছিল, ‘যদি কোনও পুরুষ কোনও নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করেন, তাহলে তিনি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হবেন।

তবে নতুন আইনে তা সংশোধিত খসড়ায় ৯(১) উপধারায় ‘যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’ শব্দগুলোর পরিবর্তে ‘মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’ প্রতিস্থাপন করা হয়েছে।

এছাড়া আইনের ৯(৪) (ক) উপধারায় ছিল, যদি কোনও ব্যক্তি কোন নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করিয়া মৃত্যু ঘটানোর বা আহত করার চেষ্টা করেন, তাহা হইলে উক্ত ব্যক্তি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হইবেন এবং ইহার অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হইবেন।

এই উপধারা সংশোধন করে খসড়ায় ‘যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’ এর পরিবর্তে ‘মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’ শব্দগুলো যোগ করা হয়।

বিলে অপরাধের শিকার ব্যক্তির পাশাপাশি ‘অপরাধে অভিযুক্ত ব্যক্তির’ মেডিক্যাল পরীক্ষা করার বিষয়টি যুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া ৩২ ধারার সঙ্গে ৩২(ক) শিরোনামে নতুন একটি ধারা যুক্ত করা হয়েছ।

৩২ (ক) উপধারায় বলা হয়, এই আইনের অধীন সংঘটিত অপরাধে অভিযুক্ত ব্যক্তি এবং অপরাধের শিকার ব্যক্তির ধারা ৩২ এর অধীন মেডিকেল পরীক্ষা ছাড়াও, উক্ত ব্যক্তির সম্মতি থাকুক বা না থাকুক, ২০১৪ সালের ডিঅক্সিরাইবোনিউক্লিক এসিড (ডিএনএ) আইনের বিধান অনুযায়ী তার ডিএনএ পরীক্ষা করতে হবে।

খসড়া আইনটির সম্পর্কে প্রতিমন্ত্রী বলেন, সামাজিক ন্যায় বিচারের উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশের প্রাগ্রসরমান ধারা বিশ্বব্যাপী নন্দিত ও প্রশংসিত। দেশে নারী ও শিশু ধর্ষণের মত জঘন্য অপরাধ সংঘটন, সামাজিক গতিশীলতায় নেতিবাচক প্রভাব রাখাসহ সার্বিক সামাজিক উন্নয়নের ধারাকে বিশেষভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ধর্ষণের মতো হীন অপরাধ দমনে অপরাধীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণার্থে দণ্ডারোপের ক্ষেত্রে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ শাস্তি বিধানের ব্যবস্থা গ্রহণ-সময় ও পরিপ্রেক্ষিত বিবেচনায় অত্যাবশ্যক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here