নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীকে পাঁচ ডলার ‘ঘুষ’!

0
9

খবর৭১ঃব্যক্তিগত একটি অনুরোধ জানিয়ে নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা আরডার্নকে চিঠি দিয়ে পাঁচ ডলার ‘ঘুষ’ দিয়েছিল এক শিশু। তবে শিশুটির চিঠির জবাব দিলেও তার দেয়া পাঁচ ডলার ফিরিয়ে দিয়েছেন জাসিন্দা।

ড্রাগন বিষয়ে গবেষণা করতে আগ্রহী জানিয়ে জাসিন্দা আরডার্নকে চিঠি পাঠান ১১ বছর বয়সী শিশু ভিক্টোরিয়া।

ভিক্টোরিয়া নামের ঐ শিশু ড্রাগনদের প্রশিক্ষক হিসেবে কাজ করতে চায় বলে সরকারকে ড্রাগন বিষয়ে গবেষণার অনুরোধ করে।

প্রধানমন্ত্রীকে পাঠানো চিঠির সঙ্গে ভিক্টোরিয়া নিউজিল্যান্ডের ৫ ডলারও (৩.২ মার্কিন ডলার বা ২.৫ পাউন্ড) পাঠিয়েছে। আপাতদৃষ্টিতে সেটিকে ঘুষ হিসেবেই ধরে নেয়া হয়েছে।

জাসিন্দা আরডার্ন তার কার্যালয়ের আনুষ্ঠানিক কাগজে লেখা ফিরতি চিঠিতে ঐ শিশুকে জানান যে, তার প্রশাসন ‘এ মুহূর্তে ড্রাগনদের বিষয়ে কোনো গবেষণা চালাচ্ছে না।’

তবে ঐ শিশুর কাছে ব্যক্তিগত একটি চিঠি পাঠান তিনি। নিজ হাতে লেখা চিঠিতে জাসিন্দা লেখেন, ‘পুনশ্চঃ আমি তবুও ড্রাগনদের দিকে নজর রাখব। তারা কি স্যুট পরে?’

প্রধানমন্ত্রীর জবাবে আসা চিঠিটি সামাজিক মাধ্যমের সাইট রেডিট’এ প্রকাশিত হলে বিষয়টি আলোচনায় আসে। এর আগে বিষয়টি তেমন প্রকাশ পায়নি।

রেডিটের একজন ব্যবহারকারী পোস্ট করে দাবি করেন যে তার ছোট বোন ‘জাসিন্দাকে ঘুষ দেয়ার’ চেষ্টা করেছিলেন।

রেডিট ব্যবহারকারীর অ্যাকাউন্টটি থেকে পোস্ট করা হয় যে তার ছোট বোন ‘সরকারের কাছে জানতে চেয়েছেন যে তারা ড্রাগন সম্পর্কে কী জানে এবং তাদের কাছে কোনো ড্রাগন আছে কিনা। থাকলে সে ড্রাগনের প্রশিক্ষক হতে পারে।’

জাসিন্দা আরডার্ন আসলেই ঐ চিঠির জবাব দিয়েছিলেন বলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নিশ্চিত করা হয়।

চিঠি লেখার জন্য ভিক্টোরিয়াকে ধন্যবাদ জানিয়ে জাসিন্দা লেখেন, ‘যেহেতু আমরা ড্রাগন নিয়ে এখন কোনো গবেষণা করছি না, তাই তোমার ঘুষের টাকাটাও ফেরত পাঠাচ্ছি।’

অবশ্য জাসিন্দার শিশুদের চিঠির জবাব দেয়া এটিই প্রথম নয়। এর আগেও বেশ কয়েকবার ছোট শিশুদের চিঠির জবাব দিয়ে চিঠি লিখেছেন জাসিন্দা আরডার্ন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here