ঋণ পরিশোধ সরকারের ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে: সিপিডি

0
22

দেশি ও বিদেশি দুই ধরনের ঋণই সরকারের পরিশোধ ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) সম্মাননীয় ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য।

তিনি বলেন, অতীতে কোন বিদেশি ঋণ খেলাপি না হওয়ার গর্ব ছিল বাংলাদেশের। বর্তমানে প্রায় পাঁচ বিলিয়ন ডলার পরিমাণের ঋণ, আমদানি মূল্য বা অন্যান্য দেনার পরিশোধ বকেয়া রয়েছে।

রোববার (৫ মে) রাজধানীর একটি হোটেলে অনুষ্ঠিত ‘নতুন সরকার, জাতীয় বাজেট এবং জনগণের প্রত্যাশা’ শীর্ষক নীতি সংলাপে দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য এসব কথা বলেন।

সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ডক্টর ফাহমিদা খাতুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে রাজনীতিবিদ, সরকারের নীতিনির্ধারক, জনপ্রতিনিধি, অর্থনীতিবিদ এবং বেসরকারি খাতের বিশেষজ্ঞরা বক্তব্য দেন।

দেশের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীদের ৮৯ শতাংশই বর্তমান সরকারের বাজেট বিষয়ক উদ্যোগগুলোর প্রশংসা করছে বলে মনে করে সিপিডি এবং এসডিজি অর্জনে নাগরিক প্ল্যাটফর্ম, বাংলাদেশ। তবে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের প্রায় ৬৪ শতাংশ উত্তরদাতারই বাজেট সম্পর্কে সরকারের কাছে কোন প্রত্যাশা নেই বলে দুই সংস্থার একটি যৌথ সমীক্ষায় উঠে এসেছে।

অনুষ্ঠানে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করে ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, গুগল ফর্মের মাধ্যমে ২ হাজার ২৪৯ জন প্রতিক্রিয়া এবং ৮ হাজার ৪৮টি সোশ্যাল মিডিয়া প্রতিক্রিয়া এবং মন্তব্যের মতামতের ভিত্তিতে সমীক্ষাটি পরিচালিত হয়েছে।

তিনি বলেন, এক দিকে ৮৯ শতাংশ ব্যক্তি সরকারি উদ্যোগের প্রশংসা করছেন, আর অন্য দিকে ৬৪ শতাংশ লোকের সরকারের কাছে কোন প্রত্যাশাই নেই। বিষয়টিকে তিনি কিছুটা বিপরীতমুখী অবস্থান হিসেবে মন্তব্য করেন।

দেবপ্রিয় বলেন, অনিয়ন্ত্রিত উচ্চ মূল্যস্ফীতি, সরকারি ঋণের ক্রমবর্ধমান চাপ এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হ্রাসে সৃষ্ট সংকটগুলো অর্থনীতিকে ত্রিমুখী সমস্যার সম্মুখীন করছে।

তিনি আরও বলেন, কর আদায় বৃদ্ধিতে ব্যর্থতার কারণে সরকারের আর্থিক সংস্থান হ্রাস পাচ্ছে। এর ফলে অর্থনীতির অন্যান্য সূচকেও অবনতি হচ্ছে।

ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, মূল্যস্ফীতি প্রায় ১০ শতাংশ রয়ে গেছে, যা খাদ্য ও অখাদ্য খরচ হ্রাস, সঞ্চয়, বিনিয়োগ এবং শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণের মাধ্যমে পিছিয়ে থাকা মানুষের জীবন ও জীবিকার ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলে।

বৈশ্বিক মূল্যস্ফীতি কমলেও বাংলাদেশে এ বিষয়ে গৃহীত উদ্যোগ কাজ করছে না বলেও জানান তিনি। এই সমস্যা মোকাবিলা করেই আগামী অর্থবছরের বাজেটে মূল্যস্ফীতি মোকাবিলা, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও সামাজিক নিরাপত্তায় বরাদ্দ জোরদার করার তাগিদ দেন দেবপ্রিয়।

আর এ সব সমস্যা মোকাবিলা করতে ব্যর্থ হলে স্বল্পোন্নত দেশের (এলডিসি) তালিকা থেকে উত্তরণের পর সম্ভাব্য চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলা করা অসম্ভব হবে বলেও মনে করেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here