বাংলার মাটিতে কোন পাতানো নির্বাচন করতে দেওয়া হবেনা- মির্জা ফখরুল

0
216

মিজানুর রহমান মিলন, সৈয়দপুর থেকে :

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বাংলার মাটিতে আওয়ামী লীগের নীল নকশার কোন পাতানো নির্বাচন করতে দেওয়া হবে না। তাদের ওই নির্বাচনে বিএনপিতো নয়ই,
অন্যকোন দলও অংশ নিবেনা। জনগনকে সাথে নিয়েই সে নির্বাচন প্রতিহত করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে বাধ্য করা হবে। শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) একদফা দাবি আদায়ে তারুণ্যের রোডমার্চ কর্মসূচিতে রংপুর থেকে দিনাজপুর যাওয়ার পথে সৈয়দপুর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে আয়োজিত পথসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি ওইসব কথা বলেন। হাজার হাজার নেতাকর্মীর অংশগ্রহণে রোডমার্চটি ওইদিন দুপুর দেড়টায় সৈয়দপুর পথসভায় এসে মিলিত হয়।

একদফার আন্দোলন সফল করতে এখন থেকে নেতাকর্মীদের রাজপথে থাকার আহবান জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল বলেন, বিএনপির হাজার হাজার নেতাকর্মীকে জেলে আটক রাখা হয়েছে। তাদের দায়ের করা সাজানো মামলায় নিম্ন আদালতে গেলে জামিন দেয়া হয় না। ফলে ওইসব মামলায় দিনের পর দিন বিএনপির নেতাকর্মীদের কারাবাস করতে হচ্ছে। আবার নির্বাচনের আগে নেতাদের জেলে আটক রাখার ষড়যন্ত্র করছে তারা। তাই তাদের সকল অন্যায় অপকর্মের জবাব দিতে এক দফার আন্দোলনের অংশ হিসেবে তারুণ্যের রোডমার্চ শুরু হলো, আর এ কর্মসূচি সেদিন শেষ হবে যেদিন এ সরকারের পদত্যাগ ঘটবে। সৈয়দপুর রাজনৈতিক জেলা বিএনপির সভাপতি অধ্যক্ষ আব্দুল গফুর সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত পথসভায় মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, বর্তমান সরকার জোর করে ক্ষমতায় টিকে আছে। তারা গণতন্ত্রকে নির্বাসনে পাঠাতে চায়। ২০১৪ ও ২০১৮ সালে তারা যেমন নির্বাচন করেছে ঠিক সেভাবে আগামি সংসদ নির্বাচন করার নতুন নীল নকশা করছে। এজন্য সব সেক্টরকে তাদের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে। তিনি বলেন বর্তমান সরকারের এসব ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। জনগনের কস্টের কথা উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে কয়েকগুণ, মানুষজনের ক্রয় ক্ষমতা হাতের নাগালের বাইরে চলে গেছে। গার্মেন্টসসহ অনেক শিল্প প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে। সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ না থাকায় উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। সেচ ও কৃষিকাজ করতে পারছেন না কৃষকরা। ব্যাংক খালি করে দিয়েছে, রিজার্ভ থেকে টাকা চুরি করছে তারা। এই সরকার দেশকে বিপর্যয়ের দিকে নিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, শুধু বিএনপি নয় দেশের সবগুলো রাজনৈতিক জোট ঘোষণা দিয়েছে যে; এ সরকারের অধীনে আর কোনো নির্বাচন নয়। এই সরকার বার বার জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করেছে। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে বিএনপি সেখানে অংশ নেবে। পথসভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য বলেন যুবদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু,ছাত্রদলের সভাপতি সাইফ মাহমুদ জুয়েল, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এসএম জিলানী।
সৈয়দপুর জেলা বিএনপি সাধারন সম্পাদক শাহীন আকতার শাহিন, সাবেক এমপি বিলকিস ইসলাম, জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি এ্যাড. এস এম ওবায়দুর রহমান,সহ সভাপতি শফিকুল ইসলাম জনি, সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন প্রামাণিক, প্রচার সম্পাদক আবু সরকার,উপজেলা বিএনপি সভাপতি রেজাউল করিম লোকমান, সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান কার্জন,পৌর বিএনপি সভাপতি শেখ বাবলু, কিশোরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মামুন, সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম ডালিম, জেলা যুবদলের আহবায়ক তারিক আজিজ, সদস্য সচিব হাজী পারভেজ আলম গুড্ডু, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি হোসাইন মোহাম্মদ আরমান, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি পৌর কাউন্সিলর এরশাদ হোসেন পাপ্পু, সাধারণ সম্পাদক এম এ পারভেজ লিটন,জেলা কৃষক দলের সভাপতি মাজহারুল ইসলাম মিজু, সাধারন সম্পাদক সাদেদুজ্জামান দিনার, জেলা তাতীদলের সদস্য সচিব জুয়েল রানা,জেলা মহিলা দলের সভাপতি রওনক জাহান রেনু, সাধারন সম্পাদক রুপা প্রমুখ।
পথসভায় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম মিল্টন, ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি(ভারপ্রাপ্ত) রাশেদ ইকবাল খান, স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক রাজিব আহসান, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজমুল হাসান, চলচিত্র অভিনেতা ও জাসাস কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম-আহবায়ক শিবা শানু এবং স্থানীয় বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
পথসভা শেষে সৈয়দপুর বাইপাস মহাসড়ক দিয়ে দিনাজপুরের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। পথে সৈয়দপুর ওয়াপদা মোড়ে নীলফামারী জেলা বিএনপির আয়োজনে এক পথসভায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বক্তব্য রাখেন।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here