লক্ষ্মীপুর-২ সংসদীয় আসন ও ২০৪ ইউপিতে ভোট চলছে

0
47

খবর৭১ঃ লক্ষ্মীপুর-২ সংসদীয় আসন, ঝালকাঠি ও দিনাজপুরের সেতাবগঞ্জ পৌরসভা এবং প্রথম ধাপের ২০৪টি ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) ভোটগ্রহণ চলছে।

সোমবার সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়; একটানা চলবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত।

এদিকে সকাল পৌনে ৭টার দিকে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি মাথায় নিয়ে ভোটাররা কেন্দ্রে উপস্থিত হয়েছেন।

তবে কেন্দ্রে নিরাপত্তায় র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি ও আনসারের প্রায় ৫০ হাজার সদস্য মাঠে নামানো হয়েছে। এছাড়াও রয়েছেন জুডিশিয়াল ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

ইসি জানিয়েছে, কুয়েতের আদালতে কাজী শহিদ ইসলাম পাপুল দণ্ডিত হওয়ায় লক্ষ্মীপুর-২ আসন শূন্য ঘোষণা করা হয়।

এ আসনে আজ অনুষ্ঠেয় উপনির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন ও জাতীয় পার্টির প্রার্থী শেখ ফায়িজ উল্যাহ শিপন। ১৯টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত এ আসনে ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ২ হাজার ৯২৩ জন। কেন্দ্র রয়েছে ১৩৬টি এবং ভোটকক্ষ ৯৭৯টি। এ আসনের নির্বাচনে সাধারণ ভোটকেন্দ্রের পাহারায় ১৭ থেকে ১৮ জন এবং ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে ১৮-১৯ জন মোতায়েন থাকছেন।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় এই আসনে পুলিশের ২০টি মোবাইল ও ১০টি স্ট্রাইকিং ফোর্স, র‌্যাবের ১০টি টিম ও বিজিবির ১০ প্লাটুন সদস্য মাঠে রয়েছেন। এছাড়া ২২ জন নির্বাহী ও ২ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটও নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) এ আসনে ভোটগ্রহণ চলছে।

অপরদিকে ঝালকাঠি পৌরসভা নির্বাচনে দুইজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন -স্বতন্ত্র প্রার্থী আফজাল হোসেন ও ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের হাবিবুর রহমান।

এ পৌরসভায় ভোটার সংখ্যা ৩৯ হাজার ৬৩৬ জন। সেতাবগঞ্জ পৌরসভায় প্রার্থী পাঁচজন। তারা হলেন-আওয়ামী লীগের মো. আসলাম, ওয়ার্কার্স পার্টির রশিদুল ইসলাম, স্বতন্ত্র প্রার্থী নাজমুন নাহার মুক্তি, নাহিদ বাসার চৌধুরী ও হাবিবুর রহমান দুলাল। দুই পৌরসভায় ইভিএমে ভোটগ্রহণ চলছে।

সূত্র জানায়, ২০৪ ইউপির মধ্যে ১৮৪টিতে কাগজের ব্যালটে এবং বাকি ২০টিতে ইভিএমে ভোট হবে। ২০৪ ইউপির মধ্যে ২৮টিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় পেয়েছেন। বাকি পদগুলোয় ভোট হবে। ১৩টি জেলার ৪১টি উপজেলায় এসব ইউপি অবস্থিত। এতে চেয়ারম্যান পদে ৮৫৯ জন, সংরক্ষতি মেম্বার পদে ২ হাজার ১৫৪ জন এবং সাধারণ মেম্বার পদে ৬ হাজার ৯৬০ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এসব ইউপিতে ভোটকেন্দ্র ১ হাজার ৮৩৬টি এবং ভোটকক্ষ ১০ হাজার ২৬০টি। এতে ৩২ হাজার ৭২৭ জন নির্বাচন কর্মকর্তা হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। ইউনিয়ন পরিষদগুলোয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ৪৫ হাজারের বেশি সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ভোটকেন্দ্রে ৪০ হাজার ৩৯২ জন দায়িত্ব পালন করছেন।

কেন্দ্রের বাইরে নির্বাচনি এলাকায় পুলিশের মোবাইল টিম ২০৪টি, স্ট্রাইকিং টিম ৭৪টি, র‌্যাবের ১২৪টি টিম ও বিজিবি ১২৩ প্লাটুন সদস্য রয়েছেন। ইউপিগুলোয় ৩৯৩ জন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ও ৪১ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here