বিএনপিকে যে ২৩ শর্ত দিল পুলিশ

0
69

খবর৭১ঃ
২৩টি শর্ত দিয়ে বিএনপিকে রাজধানীতে সমাবেশ করার অনুমতি দিয়েছে পুলিশ। মঙ্গলবার বিকালে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) পক্ষ থেকে বিএনপিকে সমাবেশের এই অনুমতি দেওয়া হয়।

এর আগে গত ৭ মার্চ সমাবেশের অনুমতি চেয়ে ডিএমপির কাছে আবেদন করে বিএনপি। আবেদনে মোহাম্মদপুর থানাধীন শহীদ পার্ক মাঠে আগামী ১০ মার্চ দুপুর আড়াইটা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির উদ্যোগে সমাবেশ করার কথা জানায় দলটি। দেশব্যাপী নিরপেক্ষ নির্বাচন ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে এ সমাবেশ করবে বিএনপি।

সেই আবেদনের প্রেক্ষিতে ডিএমপি ২৩টি শর্ত দিয়ে বিএনপিকে সমাবেশ করার অনুমতি দিল।

যে ২৩ শর্ত দেওয়া হয়েছে- তা হলো:

১. এই অনুমতিপত্র স্থান ব্যবহারের অনুমতি নয়; স্থান ব্যবহারের জন্য অবশ্যই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমোদন নিতে হবে।

২. স্থান ব্যবহারের অনুমতিপত্রে উল্লেখিত শর্তাবলী যথাযথভাবে পালন করতে হবে।

৩. স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও আইইডিসিআর কর্তৃক নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি যথাথভাবে অনুসরণ করতে হবে।

৪. কোনো মহল বা গোষ্ঠী যাতে নাশকতামূলক কোনো কর্মকাণ্ড ঘটাতে না পরে সে লক্ষ্যে যাতে অবাঞ্ছিত কেউ সমাবেশস্থলে প্রবেশ করতে না পারে তা যথাযথভাবে নিশ্চিত করতে হবে।

৫. সমাবেশে আগতদের যথাযথ নজরদারীর আওতায় নিয়ে আসার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

৬. সমাবেশের নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা নিশ্চিত কল্পে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় পর্যাপ্ত সংখ্যক স্বেচ্ছাসেবক নিয়োজিত করতে হবে।

৭. নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় প্রতিটি প্রবেশ গেটে আর্চওয়ে স্থাপন করতে হবে এবং সমাবেশস্থলে আগতদের হ্যান্ড মেটাল ডিটেক্টরের মাধ্যমে ভদ্রোচিতভাবে চেকিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে।

৮. স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় সমাবেশস্থলের অভ্যন্তরে ও বাইরে উন্নত রেজ্যুলেশনযুক্ত সিসি ক্যামেরা স্থাপন করতে হবে।

৯. নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় Vehicle Scanner/Search Mirror-এর মাধ্যমে সমাবেশস্থলে আগত সব যানবাহন তল্লাশির ব্যবস্থা করতে হবে।

১০. নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ব্যবস্থার বিষয়টি নিশ্চিতকল্পে সমাবেশ চলাকালীন সময় জেনারেটরের ব্যবস্থা করতে হবে।

১১. সমাবেশস্থল ও এর চারপাশে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করতে হবে।

১২. যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি বা যানজট সৃষ্টি করা যাবে না এবং রাস্তায় যানবাহন পার্কিং করা যাবে না।

১৩. জনসাধারণের/পথচারীদের অসুবিধা সৃষ্টি করে সমাবেশ করা যাবে না।

১৪. উসকানিমূলক কোনো বক্তব্য প্রদান বা প্রচারপত্র বিলি করা যাবে না এবং ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানে এমন কিছু করা যাবে না।

১৫. স্বাভাবিক যান চলাচল নিশ্চিতকল্পে ট্রাফিক পুলিশকে সহায়তার জন্য পর্যন্ত সংখ্যক স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ করতে হবে।

১৬. জনসাধারণের অসুবিধা সৃষ্টি করে উচ্চ শব্দে কোনো প্রকার বাদ্যযন্ত্র ব্যবহার করা যাবে না।

১৭. নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় সমাবেশস্থলে অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা রাখতে হবে।

১৮. অনুমোদিত সময়ের মধ্যে সমাবেশের যাবতীয় কাজ শেষ করতে হবে।

১৯. রাষ্ট্রবিরোধী কোনো বক্তব্য প্রদান/কার্যকলাপ করা যাবে না।

২০. মিছিলসহকারে সমাবেশস্থলে আসা যাবে না।

২১. সমাবেশস্থলে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটলে আয়োজনকারী কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবেন।

২২. উল্লেখিত শর্তাবলী অমান্য করা হলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

২৩. কর্তৃপক্ষ কোনো কারণ দর্শানো ব্যতিরেকে ওই অনুমতি আদেশ বাতিল করার ক্ষমতা সংরক্ষণ করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here