বাংলাদেশের ফুটবলের ভাগ্য নির্ধারণ আজ

0
10

খবর ৭১ঃ বাংলাদেশ লাওসের মাঠে ১-০ গোলে জিতে এসে সুবিধাজনক স্থানে থাকলেও একমুহূর্তে সব চিত্র বদলে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে দেশটি। সেই হুংকার দিয়ে রেখেছেন লাওসের কোচ সুন্দ্রামমুর্তি এবং অধিনায়ক সৌক আফনি। দুজনের এক কথা হারার জন্য আমরা আসিনি। যা কিছু নিজেদের ঘরের মাঠে হারিয়েছি তা ঢাকার মাঠ হতে সুদে আসলে আদায় করে নিতে হবে।

লাওস ৬ জুন নিজেদের মাঠে হারে। তাই আজ বাংলাদেশ লাওস ফিরতি ম্যাচের হিসাবটাও খুব সহজ। ২০২২ কাতার বিশ্বকাপ ফুটবলের বাছাইয়ের দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠতে হলে এদিন বাংলাদেশকে ড্র করতে হবে। অপরদিকে লাওসকে জিততে হবে। ১-০ গোলে জিতলে হবে না। লাওস ২-০ কিংবা ২-১ গোলে জিতলেও দ্বিতীয় রাউন্ডে যাবে আর বাংলাদেশ বিদায় নেবে। লাওস যদি ১-০ গোলে জিতে তাহলে দুদলের পয়েন্ট সমান হবে। তখন ৯০ মিনিটের খেলাটা ৩০ মিনিট বেড়ে ১২০ মিনিট পর্যন্ত হবে। সেখানেও যদি নিষ্পত্তি না হয় টাইব্রেকারে গড়াবে।

হিসাব খুব সহজ, বাংলাদেশের জন্য বাঁচা মরার লড়াই আজ। টিকে গেলে বাংলাদেশ দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠবে। সেখানে থাকা ৩৪ দলের সঙ্গে গ্রুপ পর্যায়ের খেলার সুযোগ আসবে বাংলাদেশের। আরো ৮ ম্যাচ খেলার সুযোগ থাকবে। সেখানে গ্রুপ পর্যায়ে হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে পদ্ধতিতে খেলা হবে। প্রায় বছর জুড়ে জাতীয় ফুটবল দলের খেলা থাকবে।

কোনো কারণে আজ বাংলাদেশ যদি ২-০ গোলে হেরে বিদায় নেয় তাহলে প্রায় আগামী দুই আড়াই বছর ফিফা এবং এএফসির স্বীকৃত কোনো খেলায় থাকবে না বাংলাদেশ। কারণ কাতার বিশ্বকাপ এবং এশিয়ান কাপের বাছাই এক সঙ্গে চলছে। এখন বাংলাদেশের ফুটবলারদের ওপর সবকিছু নির্ভর করছে।

কোচ জেমি ডে বললেন, ‘কঠিন ম্যাচ হবে সেটা আমরা জানি। প্রথম লেগে ভাগ্যক্রমে জিতেছি। আমাদের প্রস্তুতি ভালো হয়েছে। আজ আমরা জয়ের জন্য নামবো। ড্রয়ের কথা মাথায় রাখতে চাই না। আমরা জানি লাওস আক্রমণাত্মক খেলবে। তারা জয়ের জন্যই এসেছে। কারণ তাদের গোল প্রয়োজন।’

একটা বিষয়ে জেমি ডের দুশ্চিন্তা আছে। নিজেই বললেন, ‘লাওস সেটপিসে খুবই বিপজ্জনক। এটা সামাল দিতে হবে।’ বাংলাদেশের রক্ষণভাগ দুর্বল। সে প্রসঙ্গ নিয়ে অধিনায়ক জামাল ভুঁইয়া বললেন, ‘প্রথম লেগটা আমাদের জন্য কঠিন ছিল। বিশেষ করে প্রথমার্ধে। দ্বিতীয়ার্ধে আমরা ভালো খেলতে শুরু করেছিলাম।’

প্রশ্ন উঠল বিদায় নিলে বাংলাদেশের ফুটবল ভাগ্যে কি ঘটবে। জামাল ভুঁইয়া কোনো রাখঢাক না করে বললেন, ‘আমরা আজকের খেলাটা নিয়ে ভাবছি। আমরা ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবছি না।’

লাওসের সাত ফুটবলার থাইল্যান্ডের লিগে খেলছে। লাওসের সিঙ্গাপুরীয় কোচ সুন্দ্রামমুর্তি জানালেন, তারা প্রথম খেলায় গোল পাননি। এবার সেটা হবে না বলেই আশা করেন তারা। বাফুফেতে দুপুরে দুই দলের সংবাদ সম্মেলনে লাওস অধিনায়ক বাংলাদেশের ফুটবলারদের প্রশংসা করেছেন।
প্রশংসা যতই করুক লাওস, বাংলাদেশের জন্য দুটি বড় সমস্যা হতে পারে। প্রথমটি হচ্ছে বর্তমানে ফিফা এবং এএফসির খেলায় যে ফুটবল দিয়ে খেলা হয় সেটির সঙ্গে বাংলাদেশ এখনো মানিয়ে নিতে পারেনি। এখন যে ফুটবলে খেলা হয় সেটি খুবই দ্রুতগতির। একাধিক ফুটবলারের কণ্ঠে এমন অভিযোগের কথা শোনা গেলেও কোচ জেমি সেটা উড়িয়ে দিয়েছেন। আরেকটি আশঙ্কা হচ্ছে গত দুই দিনে মাঠের ঘাস কেটে ছেঁটে ফেলা হয়েছে। এমন মাঠে খেলার গতি দ্রুত বেড়ে যায় যেখানে দ্রুতগতিতে মানিয়ে নিতে পারে না বাংলার ফুটবলাররা। তারপরও আশার আলো আছে। প্রথম খেলায় জয় পাওয়ায় বাংলাদেশই আজ ফেভারিট।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here