দুই সপ্তাহের যুদ্ধে ৫৪৬৯ সেনা হারিয়েছে ইউক্রেন: রাশিয়া

0
29
Image released by the People's Militia of the Luhansk People's Republic on July 3, 2022 shows their forces put Soviet and Russia national flags on government building as they capture Lysychansk, eastern city of Ukraine in Luhansk. Russia defense chief claims captural of one of the last Ukrainian strongholds in Luhansk oblast on Sunday. Russia’s defense minister Sergei Shoigu said Russian forces took control Sunday July 3, 2022 of the last major Ukrainian-held city Lysychansk in Ukraine’s Luhansk province, bringing Moscow closer to its stated goal of seizing all of Ukraine’s Donbas region. Sergei Shoigu told President Vladimir Putin that Russia’s troops together with members of a local separatist militia “have established full control over the city of Lysychansk,” Russian news agencies reported. Ukraine President Volodymyr Zelenskiy video address on Sunday July 3, 2022 acknowledged that Ukrainian forces had withdrawn from Lysychansk in Donbas, but vowed to restore control over the area thanks to the army's tactics.

খবর৭১ঃ ইউক্রেন গত দুই সপ্তাহে কেবল দুই অঞ্চলেই রুশ বাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধে তাদের সাড়ে পাঁচ হাজার সেনা হারিয়েছে বলে দাবি করেছে রাশিয়া।

সোমবার দেশটির রাষ্ট্রীয় সম্প্রচারমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু এ কথা বলেন। খবর সিএনএনের।

সের্গেই শোইগু বলেন, গত দুই সপ্তাহ ধরে রুশ বাহিনীর ঘিরে রাখা ইউক্রেনের লিসিচানস্ক এবং সেভেরোদোনেস্ক শহরেই এ সংখ্যক সেনাসদস্য হারিয়েছে ইউক্রেন।

এদিকে ইউক্রেনের লুহানস্ক প্রদেশ দখল করে রাশিয়া এটির নামকরণ করেছে লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিক (এলপিআর)।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেনের লুহানস্ক প্রদেশের সর্বশেষ প্রধান ইউক্রেনীয়-নিয়ন্ত্রিত শহর লিসিচানস্ক দখলে অংশ নেওয়া রুশ সেনাদের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন।

তিনি তাদের বীরের মর্যাদা দিয়ে পুরস্কৃত করার ঘোষণা দিয়েছেন। এ ছাড়া তাদের বিশ্রামে পাঠাতে প্রতিরক্ষামন্ত্রীতে নির্দেশ দিয়েছেন।

রুশ বাহিনী রোববারই লিসিচানস্কের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে বলে পুতিনকে জানিয়েছিলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু।

সেভেরোদোনেৎস্কের মতো লিসিচানস্ক যেন রুশ সেনারা দখল না করতে পারে, সে জন্য গত কয়েক সপ্তাহ ধরে সেখানে শক্তঘাঁটি গেড়ে ছিলেন ইউক্রেনীয় সেনারা। এমনকি সেভেরোদোনেৎস্কে থাকা সেনাদের লিসিচানস্কে নিয়ে আসা হয়েছিল।

কিন্তু এত কিছু করেও শেষ রক্ষা হয়নি লিসিচানস্কের। রুশ বহিনী শুধু এটি দখলই করে নেয়নি, স্বাধীন অঞ্চল হিসেবে এটির একটি নামও দিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here