মামুন কবীর তরফদারের প্রত্যাহারসহ ৩ দফা দাবিতে বেনাপোল বন্দরে লাগাতার কর্ম বিরতির ডাক

0
34

শেখ কাজিম উদ্দিন, বেনাপোল(যশোর) প্রতিনিধি: বেনাপোল স্থলবন্দরের উপ-পরিচালক (ট্রাফিক) মামুন কবীর তরফদারের প্রত্যাহারসহ ৩ দফা দাবিতে বুধবার (৮ জুন) থেকে লাগাতার কর্ম বিরতির ডাক দিয়েছে বেনাপোল ট্রান্সপোর্ট এজেন্সি মালিক সমিতি।
বাকি ২টা দাবি- বেনাপোল স্থলবন্দরে পর্যাপ্ত ইক্যুইপমেন্ট সরবরাহসহ দক্ষ চালক নিয়োগ দিতে হবে এবং বন্দরে পর্যাপ্ত শেড ও জায়গা বৃদ্ধিসহ বন্দর এলাকা যানজট মুক্ত রাখতে হবে।

মঙ্গলবার (৭ জুন) দুপুরে বেনাপোল ট্রান্সপোর্ট এজেন্সি মালিক সমিতি ভবনে সমিতির সভাপতি এ.কে.এম. আতিকুজ্জামান সনির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে এ কর্ম বিরতির ঘোষণা দেওয়া হয়।
উক্ত সম্মেলনে সমিতির সাধারণ সম্পাদক আজিম উদ্দিন গাজী এক লিখিত বক্তব্য পাঠ করে বলেন, বাংলাদেশের সর্ববৃহত্তম স্থলবন্দর বেনাপোল। এ বন্দরের মাধ্যমে সরকার প্রতি বছর ৫ হাজার থেকে সাড়ে ৫ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আয় করে। কিন্তু বন্দরে পর্যাপ্ত ইক্যুইপমেন্ট না থাকার কারনে পণ্য লোড/আলোডের কাজে চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে। ফলে, গত ১৬ মে ২০২২ তারিখের মধ্যে বেনাপোল স্থলবন্দরে পর্যাপ্ত ইক্যুইপমেন্ট ব্যবস্থা না করলে ১৭ মে ২০২২ তারিখ হতে বেনাপোল স্থলবন্দরের পণ্য পরিবহন করা হতে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছিল। তার প্রেক্ষিতে বেনাপোল স্থল বন্দরের উপ-পরিচালক(ট্রাফিক) মামুন কবীর তরফদারে সভাপতিত্বে ইক্যুইপমেন্ট সমস্যা নিরশন সংক্রান্ত এক সভায় স্থানীয় বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সাথে বৈঠক হয়। সেখানে গত ৩১/০৫/২০২২ তারিখের মধ্যে বন্দরে ৩ টি নতুন ক্রেন ও ৩ টি নতুন ফর্কলিফট সরবারহসহ দক্ষ চালক নিযোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত দেন তিনি। কথা না রাখায় বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনা করে ০১/০৬/২০২২ ইং তারিখে আরেকটি সভা আহ্বান করার জন্য বন্দর কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করে পত্র প্রেরণ করা হয়েছিল। পরে গত ০৫/০৬/২০২২ ইং তারিখে বন্দর কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন সংগঠনকে নিয়ে আলোচনা সভা করেন এবং সিদ্ধান্তের কথা পরে জানাবেন বলেছিলেন। কিন্তু বন্দর কর্তৃপক্ষ অদ্যবধি কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় আবারো বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সংগঠনের সাথে যৌথ আলোচনার মাধ্যমে ০৮/০৬/২০২২ ইং তারিখ হতে আমদানী/ রপ্তানী বাণিজ্যসহ সকল প্রকার পণ্য পরিবহন করা থেকে কর্মবিরতি পালন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

এসময় তিনি সাংবাদিকদের সাথে বলেন, বেনাপোল বন্দরের উপ-পরিচালক মামুন কবীর তরফদার বন্দরের টেন্ডারসহ বিভিন্ন কার্যক্রমে তার নিজস্ব লোক কিংবা আত্মীয় স্বজনদের নিয়োগ দিয়ে তার সকল আকাম-কুকাম করছে। তার কারণে আজ বেনাপোল বন্দর ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে চলেগেছে। তিনি বন্দরের প্রত্যেক গেটে গার্ডদের মাধ্যমে চাঁদাবাজিসহ প্রত্যেক পণ্য লোড আনলোডে অলিখিত চাঁদাবাজি করে কোটি কোটি টাকার মালিক বনেগেছেন। তার বিরুদ্ধে টু-শব্দটি করলে তিনি পণ্য লোড-আনলোডে দেরি করিয়ে দেন। বন্দরের জায়গা কেনাসহ বন্দর অভ্যন্তরে শেড নির্মাণ ও বিবিধ বিষয়ের উপর রয়েছে মামুন কবির তরফদারের কোটিপতি বনেযাওয়ার রহস্যের হিসাব। এমন কোন দূর্ণীতি নেই যে, মামুন কবির তরফদার সেখানে জড়িত নেই। তাই, তাকে এ বন্দর থেকে প্রত্যাহার করাসহ মৌলিক ৩টি দাবি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত বেনাপোল বন্দরে লাগাতার কর্মবিরতি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন এ ট্রান্সপোর্ট নেতা আজিম উদ্দিন গাজী।

উক্ত সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, বেনাপোল ট্রান্সপোর্ট এজেন্সী মালিক সমিতির সহ-সভাপতি ইদ্রিস আলী, মশিয়ার রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খায়রুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক সাজেদুর রহমান(সুমন), অর্থ সম্পাদক মুছা করিম, দপ্তর সম্পাদক জহিরুল ইসলাম রিপন, কার্যকারী সদস্য রাজু আহম্মেদ ও কার্যকারী সদস্য আহসান হাবিবসহ ট্রান্সপোর্ট এজেন্সী ব্যবসায়ীরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here