করোনায় মৃত্যুশূন্য ছয় বিভাগ, শনাক্ত ২৯৪

0
242

খবর৭১ঃ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় বাংলাদেশে আরও ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগে এই ছয়জন মারা যান। একই সময়ে করোনায় নতুন কোনো মৃত্যু নেই ছয় বিভাগে। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় ভাইরাসটি শনাক্ত হয়েছে আরও ২৯৪ জনের দেহে। করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ২২৭ জন।

বৃহস্পতিবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাণ হারানো ছয়জনকে নিয়ে দেশে করোনায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৭ হাজার ৮৪৭ জনে। এছাড়া নতুন শনাক্ত ২৯৪ জনকে নিয়ে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৬৮ হাজার ৮৫৭ জনে।

স্বাস্থ্য অধিদপপ্তর জানায়, গত এক দিনে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১৯ হাজার ৫৩৫ জনের, যাতে শনাক্তের হার ১.৫০ শতাংশ। এ পর্যন্ত ১ কোটি ৩ লাখ ১ হাজার ৫৯৩টি নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হয়েছেন ১৫ লাখ ৬৮ হাজার ৮৫৭ জন, যাতে মোট শনাক্তের হার ১৫.২৩ শতাংশ।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত এক দিনে যারা মারা গেছেন তাদের মধ্যে পুরুষ ৩ জন এবং নারী তিন জন। তাদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে চারজন এবং চট্টগ্রাম বিভাগে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে।

রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে গত একদিনে করোনায় কারও মৃত্যু হয়নি।

গত এক দিনে সুস্থ হওয়া ২২৭ জনকে নিয়ে মোট সুস্থ ১৫ লাখ ৩২ হাজার ৬৯৫ জন।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। আর এর ১০ দিন পর প্রথম মৃত্যুর খবর আসে। এরপর কয়েক মাস মৃত্যু ও শনাক্ত ঊর্ধ্বগতিতে থাকার পর গত বছরের শেষ দিকে এসে তা অনেকটা কমে যায়। চলতি বছরের প্রথম তিন মাস অনেকটা নিয়ন্ত্রণে ছিল করোনা পরিস্থিতি। তবে মার্চের শেষ দিক থেকে দেশে বাড়তে থাকে করোনার প্রকোপ। এটাকে বিশেষজ্ঞরা করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা বলে জানান।

গত এপ্রিল মাস থেকে বাড়তে থাকা করোনার প্রকোপ চরম আকার ধারণ করে জুলাইয়ে। এই মাসে এক দিনে সর্বোচ্চ ২৬৪ জন মৃত্যুর খবর দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এছাড়া দিনে শনাক্তের সংখ্যাও ১৫ হাজার ছাড়ায়। তবে আগস্টের শেষ দিক থেকে করোনার প্রকোপ কমতে থাকে। সেপ্টেম্বর মাস পুরোটাই করোনার প্রকোপ নিম্নমুখী ছিল। অক্টোবরেও তা অব্যাহত রয়েছে।

দেশে করোনা পরিস্থিতি মোটামুটি নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তবে সংস্থাটি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপর জোর দিয়েছে। যেকোনো সময় করোনা আবার জটিল আকার ধারণ করতে পারে বলেও সতর্ক করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here