সৈয়দপুরে ন্যায্যমূল্যে টিসিবি’র পণ্য বিক্রি শুরু,

0
130

সবার ভাগে জুটছে না পণ্য

মিজানুর রহমান মিলন, সৈয়দপুর থেকে :
সৈয়দপুরে পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে আজ বৃহস্পতিবার থেকে ন্যায্যমূল্যে টিসিবি’র খাদ্য পণ্য বিক্রয় কার্যক্রম শুরু হয়েছে। শহরের শহীদ স্মৃতি অম্লান চত্বরে সকাল ৯টা থেকে এ কার্যক্রম শুরু হলে দুপুরের মধ্যে তা শেষ হয়ে যায়। ফলে টিসিবির পণ্য নিতে আসা অনেকেই খালি হাতে ফিরে যেতে বাধ্য হয়েছে। এ অবস্থায় ক্রেতা সাধারণ বাজার নিয়ন্ত্রণ রাখতে পণ্যের পরিমাণ বাড়িয়ে কয়েকটি পয়েন্টে টিসিবি’র খাদ্য পণ্য বেচাকেনার দাবি জানিয়েছে।
সূত্র জানায়, মাহে রমজান উপলক্ষে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) ‘র ভ্রাম্যমাণ ট্রাক সেল কার্যক্রমের অংশ হিসেবে আজ বৃহস্পতিবার শহরের শহীদ স্মৃতি অম্লান চত্বরে ন্যায্যমূল্যে খাদ্যপণ্য বিক্রয় শুরু হয়। সৈয়দপুরের ডিলার ইমতিয়াজ ট্রেডার্সের মাধ্যমে ন্যায্যমূল্যে বিক্রির জন্য ৪০০ কেজি ছোলা, ৮০০ কেজি চিনি, ৬০০ কেজি ডাল, ১ হাজার ২০০ লিটার সোয়াবিন তেল ও ২০০ কেজি পেঁয়াজ বরাদ্দ দেয় টিসিবি। এসব পণ্যের মধ্যে চিনি ৫৫ টাকা কেজি, ডাল ৫৫ টাকা কেজি, সয়াবিন তেল ১০০ টাকা লিটার, পেঁয়াজ ২০ টাকা কেজি ও ছোলা ৫৫ টাকা কেজি মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে। ওইসব প্রতিটি পণ্য জনপ্রতি ২ কেজি করে বিক্রয়ের জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এদিকে রমজান উপলক্ষে টিসিবি’র পণ্য বিক্রয় শুরু হয়েছে এমন সংবাদ প্রচার হলে মুহূর্তেই শহরের চত্বরে ট্রাক সেল কার্যক্রম পয়েন্টে অসংখ্য নারী পুরুষের ভীড় জমে। করোনার স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে মানুষজন হুমড়ি খেয়ে পড়ে খাদ্যপণ্য কেনার জন্য। কিন্তু চাহিদার তুলনায় খাদ্যপণ্য কম থাকায় এবং একজন ক্রেতা অধিক পরিমাণ পণ্য খরিদ করায় কয়েক ঘন্টার মধ্যে শেষ হয় বিক্রি কার্যক্রম। ফলে অনেকে পণ্য না পেয়ে হতাশ হয়ে ফিরে আসেন। তাদের দাবি রমজান মাসে এসব পণ্যের চাহিদা বেশী। তাই টিসিবি’র পণ্যের পরিমাণ বাড়িয়ে একাধিক পয়েন্টে ট্রাক সেল কার্যক্রম চালু করার দাবি জানিয়েছেন। দোকান কর্মচারি আনোয়ার (৪০)। সে জানায়, ন্যায্যমূল্যে টিসিবি’র পণ্য খরিদ করতে এসেছিলাম। কিন্তু না পেয়ে ফিরে গেলাম। একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মচারি সিদ্দিক, গৃহিণী নাসরিন বলেন, টিসিবি’র পণ্য ন্যায্যমূল্যে কিনতে এসে দেখি বেচাকেনা শেষ হয়েছে। তারা বলেন রমজান মাসে এসব পণ্যের চাহিদা বেশী থাকে। তাই পণ্যের পরিমাণ বাড়িয়ে বিভিন্ন পয়েন্টে ট্রাক সেল কার্যক্রম করার দাবি জানান।
এ ব্যাপারে বৃহস্পতিবার দুপুরে মুঠোফোনে কথা হয় টিসিবি ডিলার হাজী ইমতিয়াজের সাথে। তিনি বলেন, টিসিবি’র দেয়া বরাদ্দের খাদ্য প্রথম দফায় যতটুকু পেয়েছি তা প্রয়োজনের তুলনায় একেবারেই কম। তাই কয়েক ঘন্টায় শেষ হয় বিক্রি কার্যক্রম। পরবর্তীতে বরাদ্দ পেলে আবারও কার্যক্রম শুরু করা হবে। অপর ডিলার মো. শাকিলের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আগামী সপ্তাহে তার বরাদ্দের পণ্য পেতে পারেন। তখন তিনি ট্র্যাক সেল কার্যক্রম শুরু করবেন। প্রসঙ্গতঃ সৈয়দপুরে মাত্র ২ জন টিসিবির ডিলার রয়েছেন। ঘনবসতিপূর্ণ এ উপজেলায় ২ ডিলারের বরাদ্দের মালামাল বিতরণ শুরু করলে মুহূর্তেই শেষ হয়ে যায়। তাই খাদ্যপণ্যের বরাদ্দ বাড়িয়ে কার্যক্রম চালালে বাজার কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসতে পারে বলে ধারণা সচেতন মহলের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here