সৈয়দপুরে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা, ধর্ষক পলাতক

0
233
সৈয়দপুরে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা, ধর্ষক পলাতক

মিজানুর রহমান মিলন সৈয়দপুর প্রতিনিধি :

দরিদ্র বাবা-মায়ের একমাত্র কন্যা সন্তান সে। তাঁর হাসিমাখা মুখে তাদের ঘর থাকতো আলোকিত। কিন্তু কয়েকদিন কোন কথাই বলেনি সে। এরই মধ্যে সে অসুস্থ্য হয়ে পড়ে অবুঝ শিশুটি। তাঁকে সুস্থ্য করতে কাপড় দোকানের কর্মচারি পিতা ও অসহায় মা তাঁকে নিয়ে যান বিভিন্ন চিকিৎসকের চেম্বারে। চিকিৎসকরা বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা করে চিকিৎসা দেয়ায় সে এখন অনেকটাই সুস্থ। তবে চিকিৎসক শিশুটির বাবা-মাকে জানিয়ে দেন আসল সমস্যা। অবুঝ ওই শিশু কন্যা এখন সুস্থ্য হলেও তাঁর মাঝে ভয় এখনও কাটেনি। অনেক চেস্টা করে তার ভয় কাটিয়ে শিশুটি তার বাবা মাকে জানায়, সেদিনের সেই ন্যাক্কারজনক ঘটনা। তাদেরই প্রতিবেশি লম্পট এরশাদের (৩৭) নির্যাতনের শিকার হয়েছে সে।

শিশুটির মুখে এমন ঘটনা শুনে মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ে অসহায় বাবা-মায়ের। ঘটনা শুনে এলাকার লোকজনও বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন লম্পট এরশাদ ও তার পরিবারের ওপর। সৈয়দপুর শহরের মুন্সিপাড়া এলাকায় গত ২ আগস্ট এ ঘটনা ঘটলেও এটি প্রকাশ হয়ে পড়ে গতকাল মঙ্গলবার। এরপর থেকে গা ঢাকা দেয় লম্পট এরশাদ। পরে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরের পরামর্শে ওই রাতেই সৈয়দপুর থানায় ধর্ষণের অভিযোগে লম্পট এরশাদ ও তাঁর ভাবি মনি আশরাফির (৪০) বিরুদ্ধে মামলা করেন নির্যাতনের শিকার শিশুটির মা। থানায় দেয়া মামলার আরজিতে জানা গেছে, শহরের পৌর এলাকার ৫ নং ওয়ার্ডের মুন্সিপাড়া মহল্লার মৃত অাব্দুল জব্বারের বাড়িতে খেলতে যেত ৭ বছরের ওই শিশু। গত ঈদুল আযহার পরের দিন দুপুরেও লম্পট এরশাদের ভাই নওশাদের শিশু কন্যার সাথে খেলতে ওই বাড়িতে যায় সে। এসময় একা পেয়ে শিশুটিকে ঘরে ডেকে নিয়ে ধর্ষন করে লম্পট এরশাদ ।পরে সে অস্বাভাবিক অবস্থায় ঘর থেকে বেড়িয়ে যেতে দেখলে বাড়ির অন্য ঘরে থাকা ওই লম্পটের ভাবি মনি আশরাফি শিশুটিকে তাদের বাড়িতে পৌঁছে দেয়। তবে লম্পট এরশাদের ভাবি ঘটনার কথা অস্বীকার করলেও ওই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শেখ মোহন জানান, ঘটনা জানার পরেই আইনি সহায়তার জন্য নির্যাতনের শিকার ওই শিশুসহ তাঁর বাবা মাকে নিয়ে থানায় যাই। পরে লম্পট এরশাদ ও তার ভাবির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে তদন্তকারী কর্মকর্তা থানার উপ-পরিদর্শক মো. রেজাউল ইসলাম জানান, আজ বুধবার নীলফামারী আধুনিক সদর হাসপাতালে মামলার ভিকটিম শিশুটির ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। মামলার আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চালানো হচ্ছে। তবে তারা পলাতক থাকায় গ্রেফতারে বিলম্ব হচ্ছে। জানতে চাইলে সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আবুল হাসনাত খান শিশু ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
এদিকে শিশু ধর্ষণের ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন মহলে নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। তারা লম্পট ওই এরশাদকে অবিলম্বে গ্রেফতার ও দ্রুত শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here