ডাব ১৬ টাকা! বাংলাদেশ কখনোই শ্রীলঙ্কা হবে না: আসিফ

0
97

দেশের জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী আসিফ আকবরকে খেলা পাগল হিসেবে সবাই জানে। শুরু হয়েছে এশিয়া কাপ বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল এখন রাবণের দেশ শ্রীলঙ্কায়। সেখানে উড়ে গেছেন আসিফও। শ্রীলঙ্কায় কাটানো দিনগুলো নিয়ে প্রতিদিন সামাজিকযোগযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নানা বিষয়ে পোস্ট দিচ্ছেন।

কখনও দেশের ক্রিকেট নিয়ে, কখনওবা লঙ্কান প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নিয়ে। শুক্রবার (১ সেপ্টেম্বর) জনপ্রিয় এ সংগীতশিল্পী তার ফেসবুক পোস্টে ‘শ্রীলঙ্কার বিধ্বস্ত অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের’ গল্প মজার ছলে তুলে ধরেছেন। সেই সঙ্গে বাংলাদেশের সঙ্গে শ্রীলঙ্কার যে তুলনা, তা ব্যাখ্যাও করেছেন। বাংলাদেশের দুর্নীতি, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি এসব নিয়ে কটাক্ষও করেছেন।

https://www.facebook.com/asif.akbar.bd/posts/884141576403771?ref=embed_post

আসিফ আকবরের ফেসবুক পোস্ট হুবহু তুলে ধরা হলো-

হলফ করে বলতে পারি বাংলাদেশ কখনোই শ্রীলঙ্কা হবে না। বন্দরনায়েকে এয়ারপোর্ট থেকে দ্রুততম সময়ে ইমিগ্রেশন শেষ করে লাগেজ নিয়ে কোন জ্যাম ছাড়াই হোটেলে পৌঁছে গেছি। সৌন্দর্যমন্ডিত মসৃণ রাস্তায় পাইনি কোন খোঁড়াখুঁড়ির আলামত। নেই কোন অবৈধ অটো’র অত্যাচার, তেলচালিত বেবী ট্যাক্সিই একমাত্র ছোট বাহন, নেই মোটর সাইকেলের দৌরাত্ম্য। চৌদ্দগুষ্টির স্তুতিবাক্য নিয়ে লটকে থাকা কোন প্যানাফ্লেক্স ব্যানার সাইনবোর্ড দেখিনি। চোখে পড়েনি কোন রাজনৈতিক গার্বেজ সভাপতি সম্পাদক টাইপ উপ সহ কিংবা পাতি নেতার অখাদ্য প্রচার প্রচারণার নমুনা। বিদ্যূতের সাময়িক সঙ্কট পুরোপুরি কেটে গেছে।

কলম্বো থেকে চার ঘণ্টার দূরত্বে ক্যান্ডি যাওয়ার পথও ছিল মসৃন। গাড়ির হর্ন শোনারও সৌভাগ্য হয়নি। দ্রব্যমূল্য নিয়ে সৃষ্ট সাময়িক উষ্মাও গায়েব, দেখেছি উৎসবমুখর পরিবেশ। একটা ডাবের দাম বাংলাদেশি ষোল টাকা, পানিটা একটু বেশীই সুস্বাদু লাগলো। রাস্তার পাশে নেই কোন অপরিকল্পিত টং দোকান, পথের ধারে দেখিনি ময়লা আবর্জনা খালি বোতল পলিথিন। গ্যালারী থেকে বের হওয়ার সময় সবাই যার যার শেষ হয়ে যাওয়া খাবারের প্যাকেট, খালি পানির বোতল হাতে করে নিয়ে ময়লা নির্দিষ্ট জায়গায় ফেলছে।

এখানে ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের কাছে জাতি জিম্মি নয়। ৬০% বৌদ্ধ, ২০% হিন্দু, ১০% মুসলিম, ১০ % খ্রিস্টানের দেশে নেই খুন ধর্ষণ গুম হত্যা মামলাবাজি, অথচ ৯২% মুসলমানের বাংলাদেশে এসবের সাথে রয়েছে খাদ্য ভেজালকারী, সুদখোর ঘুষখোর আর ভূমিদস্যুর রাহুগ্রাস। দেশ খোকলা করে দেয়া ঐতিহাসিক ব্যাংক লুটেরা আর চাটার দল নেই। মাঝখানে যে কয়দিন পরিবারকেন্দ্রিক রাজনৈতিক জমিদারী ছিল, তারা জনরোষে পাততাড়ি গোটাতে বাধ্য হয়েছে। জাপানের টাকায় নির্মিতব্য এক্সপ্রেস হাইওয়ের সামান্য কাজ টাকার অভাবে বন্ধ আছে, তারা ঋণ করে ঘি খাওয়া জাতি না, টাকা জমলে বাকী কাজ শেষ করবে। রাতগভীরে ক্যান্ডি থেকে আসার পথে কয়েকবার গাড়ি থেমেছে, ফাঁকা রাস্তায় বেকুবের মত রেড সিগন্যালে দাঁড়িয়ে ছিলাম।

বাংলাদেশ কখনো শ্রীলঙ্কা হবে না, কারণ এখানে রাশিয়া ইউক্রেনের যুদ্ধ শুরুতেই শেষ হয়ে গেছে। বিশ বছরের গহযুদ্ধ তাদের নিঃশেষ করতে পারেনি। তারা কথিত রাবণের অনুসারী হিসেবে রাক্ষসের জাত, আর আমরা মানুষরুপে রাক্ষসের বাপ খোক্কসে পরিণত হয়েছি। আর এই একটা কারণেই বাংলাদেশ কখনো শ্রীলঙ্কা হবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here