শার্শা’র রুদ্রপুর সীমান্তে এবারও ১০টি স্বর্ণের বারসহ আটক-১

0
42

শেখ কাজিম উদ্দিন, বেনাপোল : শার্শা উপজেলার রুদ্রপুর সীমান্ত থেকে এবারও ১০ টি স্বর্ণের বার উদ্ধারসহ সাকিব হোসেন (১৯) নামে এক যুবক আটক হয়েছে। উদ্ধারকৃত স্বর্ণের ওজন ১ কেজি ২৩৩ গ্রাম, যার আনুমানিক সিজার মূল্য-৮৯,৪৬,৪৫০/- টাকা।
মাত্র ৭ দিনের ব্যবধানে এ স্বর্ণের চালানসহ তাকে আটক করেছেন খুলনা ২১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের একটি বিশেষ দল।

শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) বিকেলে স্বর্ণের চালানটি সীমান্ত পিলার ১৭/৭ এস এর ৩৬ আর পিলার হতে আনুমানিক ২০০ গজ বাংলাদেশের অভ্যন্তরে শার্শা থানাধীন পশ্চিম রুদ্রপুর গ্রামস্থ আজগরের আম বাগানের মধ্যে তল্লাশি অভিযান পরিচালনা করে এ স্বর্ণের চালানসহ তাকে আটক করা হয়ে বলে জানিয়েছেন বিজিবি।
আটককৃত সাকিব হোসেন যশোর জেলার শার্শা থানার গোগা গ্রামের মৃত কালাম হোসেনের ছেলে।
খুলনা ২১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্ণেল মোহাম্মদ তানভীর রহমান জানান, তাদের কাছে গোঁপন খবর আসে রুদ্রপুর সীমান্ত পথে একটি স্বর্ণের চালান ভারতে পাঁচার হচ্ছে। উক্ত খবরে সীমান্তে নজরদারি বাড়ানো হয়। একপর্যায়ে বিজিবির একটি বিশেষ দল রুদ্রপুর গ্রামস্থ আজগরের আম বাগানের মধ্যে তল্লাশি অভিযান পরিচালনা করে সাকিব হোসেন নামক যুবককে আটক করে। পরে, স্বর্ণের বারগুলো আসামীর ডান হাতে প্লাষ্টিক ব্যাগে ইউরিয়া সারের মধ্যে কস্টেপ দ্বারা পেচানো গামছার ভিতরে মোড়ানো অভিনব কায়দায় লুকায়িত অবস্থা থেকে উদ্ধার করা হয়।
উক্ত স্বর্ণের বারগুলো রুদ্রপুর গ্রামস্থ সালামের মোড় নামক স্থান হতে জনৈক ব্যক্তির নিকট হতে সংগ্রহ করেছে কিন্তু তার নাম জানেনা বলে জানিয়েছে আটককৃত সাকিব হোসেন। এ বিষয়ে আটককৃতের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে থানা পুলিশে সোপর্দ করা হবে বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, চলতি বছরে খুলনা ব্যাটালিয়নের দায়িত্বাধীন সীমান্ত এলাকা হতে ১১ (এগার) বারে ১৩ জন আসামীসহ সর্বমোট ২২ কেজি ৮১১ গ্রাম স্বর্ণ আটক করা হয়েছে, যার মূল্য- ১৬,৪১,৩৪,০০০/- (ষোল কোটি একচল্লিশ লক্ষ চৌত্রিশ হাজার) টাকা। এগার বারের মধ্যে আগস্ট ২০২২ মাসেই ০৪ (চার) বার এবং সেপ্টেম্বর-২০২২ মাসে ০৫ (পাঁচ) বার শার্শা উপজেলার পুটখালী, গোগা, কায়বা ও বাগআঁচড়া ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা হতে স্বর্ণ উদ্ধারসহ আসামী আটক করা হয়েছে। চোরাচালান প্রতিরোধে খুলনা ব্যাটালিয়নের ২১ বিজিবি সদস্যরা সর্বদা তৎপর রয়েছে বলে জানান লে. কর্ণেল মোহাম্মদ তানভীর রহমান, পিএসসি, ইঞ্জিনিয়ার্স।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here