পরিস্থিতি বুঝে লঞ্চ ভাড়ার সিদ্ধান্ত

0
135

খবর৭১ঃ পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর ঢাকা-বরিশাল নৌ-রুটে গড়ে শতকরা ৪০ থেকে ৫০ ভাগ যাত্রী কমলেও বিষয়টিকে স্বাভাবিক মনে করছেন লঞ্চ মালিকরা। তাদের মতে, ঈদের ১৫-২০ দিন আগ থেকে সবসময়ই যাত্রীর সংকট থাকে। পদ্মা সেতুর কারণে কিছুটা প্রভাব পড়েছে ঠিক, তবে যে হারে যাত্রী কমেছে তার কারণ সেতু নয়। শনিবার ঢাকায় অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল ও যাত্রী পরিবহণ সংস্থার কেন্দ্রীয় কমিটির সভা শেষে এমনটাই জানান লঞ্চ ব্যবসায়ীরা। বর্তমান পরিস্থিতিতে লঞ্চের ভাড়া কমবে কিনা জানতে চাইলে-স্পষ্ট উত্তর না।

সভা সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, পরিস্থিতি বুঝে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে মালিকদের। যাত্রী কম হলে কম আর বেশি হলে সরকারি রেটে ভাড়া আদায়ের অলিখিত অনুমতি দেওয়া হয়েছে সভায়। ৪ তলা বিশিষ্ট লঞ্চের ক্ষেত্রে ডেক শ্রেণিতে সর্বনিম্ন ২৫০ এবং ৩ তলা বিশিষ্ট লঞ্চের ক্ষেত্রে ৩শ টাকার কম নেওয়া যাবে না-এমনটাও বলা হয়েছে। নিজেদের সিদ্ধান্তে কেবিনের ভাড়াও কমিয়ে নিতে পারবেন মালিকরা। এছাড়া যাত্রীর চাপ বেশি থাকলে ৭ জুলাই বৃহস্পতিবার থেকে ঈদ স্পেশাল সার্ভিস চালানোর ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত হয়েছে সভায়।

পদ্মা সেতু দিয়ে যানবাহন চলাচল শুরুর দিন থেকেই আশঙ্কাজনক হারে কমতে শুরু করে ঢাকা-বরিশাল রুটের লঞ্চ যাত্রী। স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় ৪০ থেকে ৫০ ভাগ পর্যন্ত যাত্রী হারায় লঞ্চগুলো। শুধু ঢাকা-বরিশালই নয়, রাজধানী থেকে দক্ষিণাঞ্চলগামী ৩২টি নৌ রুটের প্রায় সবগুলোতেই একই চিত্র। ডেক আর কেবিনের অর্ধেক খালি রেখেই চলতে হচ্ছে লঞ্চগুলোকে। বৃহস্পতিবার বরিশাল থেকে যে কটি লঞ্চ ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে গেছে সেগুলোর কেবিন যাত্রী হিসাবেও ধরা পড়ে বিষয়টি। ওইদিন বরিশাল থেকে ঢাকায় যাওয়া কুয়াকাটা-২ লঞ্চের ২৫০টি কেবিনের মধ্যে যাত্রী ছিল মাত্র ৭৮টিতে। এ্যাডভেঞ্চার-১’র ১৬৫টি কেবিনের মধ্যে ৯০টি ছিল খালি। একইভাবে পারাবত-১২ এবং সুন্দরবন-১১ লঞ্চও ঢাকা গেছে অর্ধেক কেবিন খালি নিয়ে। এসব লঞ্চের ডেকেও ছিল না তেমন যাত্রী। যদিও এই সংকটের জন্য পদ্মা সেতুকে দায়ী করতে নারাজ লঞ্চ মালিকরা। কেন্দ্রীয় লঞ্চ মালিক সমিতির সহ সভাপতি সুন্দরবন নেভিগেশনের মালিক সাঈদুর রহমান রিন্টু বলেন, ‘এটা ঠিক যে সেতু চালু হওয়ার পর অনেকেই এখন স্বপ্নের পদ্মা সেতু দেখতে সড়ক পথে ঢাকা যাচ্ছেন। মাত্র ৩ ঘণ্টায় বরিশাল থেকে ঢাকা যাওয়ার বিষয়টি তো আমরা কোনোদিন কল্পনাও করিনি। কিন্তু তাই বলে পদ্মা সেতুর কারণে এই যাত্রী সংকট তা ঠিক নয়। ফি বছরই ঈদের ১৫-২০ দিন আগে থেকে যাত্রী সংকটে ভুগি আমরা। এই সময়ে মানুষ খুব একটা লঞ্চে যাতায়াত করে না। সংকট-টা আবার কেটে যায় ঈদের ৪-৫ দিন আগে। লঞ্চে সারাবছরই যে ভরপুর যাত্রী চলাচল করে তাও ঠিক নয়। সিজনে যাত্রী বাড়ে আবার কমে। এটা ঠিক যে পদ্মা সেতুর কারণে যাত্রী কিছুটা কমেছে। তবে আমি মনে করি এটা সাময়িক।’

যাত্রী সংকটের কারণে লোকসানের মুখে পড়া লঞ্চগুলোতে যাত্রী টানতে এরইমধ্যে শুরু হয়েছে ভাড়া কমিয়ে নেওয়া। ডেক শ্রেণিতে সরকার নির্ধারিত ভাড়া যেখানে ৩৫৪ টাকা সেখানে পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর তা কমিয়ে দেড়শ থেকে ২৫০ টাকা পর্যন্ত নিচ্ছে লঞ্চগুলো। কেবিনের ক্ষেত্রেও ভাড়া কমেছে ৪শ থেকে ৬শ টাকা পর্যন্ত। টানা এক সপ্তাহ ধরে এভাবে কম ভাড়ায় যাত্রী টানার মধ্যেই শনিবার ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয় লঞ্চ মালিকদের কেন্দ্রীয় সংগঠন অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল ও যাত্রী পরিবহণ সংস্থার কেন্দ্রীয় কমিটির সভা। ধারণা করা হচ্ছিল প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে এই সভায় ঢাকা-বরিশালসহ বিভিন্ন রুটে লঞ্চ ভাড়া কমানোর সিদ্ধান্ত নেবেন মালিকরা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেই সিদ্ধান্ত হয়নি সেখানে। সভায় সভাপতিত্ব করা মালিক সমিতির সিনিয়র সহ সভাপতি বদিউজ্জামান বাদল বলেন, ‘ভাড়া কমানোর প্রশ্নই আসে না। করোনা আমাদের কোমড় ভেঙে দিয়েছে। অন্য সব সেক্টরের শিল্প মালিকরা প্রণোদনা পেলেও আমরা পাইনি। তেলের দাম বাড়তি। বেড়েছে যন্ত্রাংশের মূল্যও। যে ভাড়ায় লঞ্চ চলছে তাতে টিকে থাকা মুশকিল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here