বাগেরহাটে মাদকসেবীদের হামলায় শুশুর-পুত্রবধূ আহত

0
24

স্টাফ রিপোটার,বাগেরহাট: বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে মাদকসেবীদের হামলায় বিশ^জিৎ দাস (৫০) ও তার পুত্র বধূ শিমু রানী দাস (২২) গুরুত্বর আহত হয়েছে। ৩০ ডিসেম্বর মোড়েলগঞ্জ থানাধীন ৮নং বনগ্রাম ইউনিয়নের আবেতা গ্রামের বিশ^জিৎ দাসের বসত ঘরের সামনে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী বিশ^জিৎ দাসের স্ত্রী গীতা রানী দাস বাদি হয়ে ৪জনকে আসামী করে অভিযোগ দায়ের করেছেন।
অভিযোগে জানা যায়, বিশ^জিৎ দাসের বসত বাড়ির রাস্তা দিয়ে পাশ^বর্তী রবিন কুমার দাস ও তার পরিবার চলাচল করে। রবিন কুমার দাস ও তার পরিবার মাদক ব্যবসায়ের সাথে জড়িত ও বাড়ীর মেয়েদের বিভিন্ন সময় উত্যক্ত করার কারনে আমরা তাদেরকে আমাদের বসত বাড়ির পথ ব্যবহার করতে নিষেধ করি। এতে তারা আমাদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে বিভিন্ন সময় আমাদেরকে অকথ্য অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজসহ ও হুমকি ধামকি দিয়ে আসছে। গত ৩০ ডিসেম্বর সকালে আমরা আমাদের বসত ঘরে অবস্থান কালে পাশ^বর্তী রবিন কুমার দাস (৫০), তার ভাই অনাথ কুমার দাস (৫৫), প্রভাত দাস(৩৩) ও সুকান্ত দাস (১৮) দা ,কুড়াল ,লোহার রডসহ বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমাদের বাড়ির সামনে এসে অকথ্য ও অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে ও ঘর বের হতে বলে। আমার স্বামী বিশ^জিৎ দাস ঘর থেকে বের হলে তাকে লোহার রড দিয়ে এলোপাথাড়ী ভাবে মারপিট শুরু করে। এ সময় রবিন কুমার দাসের হাতে থাকা ভারি ধারালো রামদা দিয়ে আমার স্বামীকে খুন করার উদ্দেশ্যে মাথা লক্ষ্য করে স্বজোরে কোপ দিলে সে গুরুতর জখম হয়ে মাটিয়ে লুটিয়ে পড়ে। এ সময় আমার পুত্র বধূ শিমু রাণী দাস আসামীদেরকে ঠেকানোর চেষ্টা করিলে অনাথ দাসের হাতে থাকা চাপাটি দিয়ে খুন করার উদ্দেশ্যে মাথা লক্ষ্য করে স্বজোরে কোপ দিলে কোপ মাথার তালুতে লেগে গুরুত্বর জখম হয় সে। আসামীদের হাতে থাকা লোহার রড, লোহার হাতুড়ি,রামদা দিয়ে আমার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে এবং আমার পুত্র বধুর সাথে থাকা স্বার্নালংকার ও ঘরে থাকা নগত টাকা নিয়ে যায়। এ সময় আমাদের ডাক চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে তারা খুন জখমের হুমকি দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে আমাদেরকে মোড়েলগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।
এ বিষয়ে মোড়েলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here