বিমান ছিনতাইয়ের অভিযোগ প্রত্যাহার ইউক্রেনের, মুখ খুলল ইরানও

0
37

খবর৭১ঃ আফগানিস্তানের কাবুল থেকে নাগরিকদের উদ্ধার করে ইউক্রেনের একটি বিমান ইরানের দিকে রওনা দেয়ার পর বিমানটি অপহরণের শিকার হয়েছে বলে জানান ইউক্রেনের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইয়েভেনি ইয়েনিন। তবে এমন অভিযোগ অস্বীকার করেছে দেশটির সিভিল এভিয়েশন। ইরানও বিষয়টি অস্বীকার করেছে।

রোববার কাবুল থেকে ওড়া বিমানটি অস্ত্রধারী অপহরণকারীরা ইরানের দিকে নিয়ে গেছে বলে অভিযোগ। তবে মঙ্গলবার সেই অভিযোগের বিষয়ে স্পষ্ট জানিয়েছে ইউক্রেনের সিভিল এভিয়েশন ও ইরান। খবর জেরুজালেম পোস্ট ও আল আরাবিয়ার

মঙ্গলবার ইউক্রেনের একটি রেডিওকে উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইয়েভেনি ইয়েনিন বলেন, ‘গত রবিবার, আমাদের প্লেনটি অন্য লোকেরা ছিনতাই করেছিল। বিমানটি আমাদের কাছ থেকে কার্যত চুরি করা হয়। এটি ইউক্রেনীয়দের বহনের পরিবর্তে অজ্ঞাত যাত্রীদের নিয়ে ইরানে দিকে উড়েছিল। কাবুল থেকে আমাদের পরবর্তী তিনটি উদ্ধার প্রচেষ্টাও সফল হয়নি। কারণ, আমাদের লোকেরা বিমানবন্দরে প্রবেশ করতে পারেনি।’

তবে ইরানের সিভিল এভিয়েশন ইউক্রেনের মন্ত্রীর অভিযোগ অস্বীকার করে জানায়, বিমানটি জ্বালানী নেয়ার জন্য মাশাদে অবতরণ করেছিল। সেখান থেকে সেটি কিয়েভের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়।

বিমান অপহরণের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন ইউক্রেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওলেগ নিকোলেনকো। তিনি এ অভিযোগ অস্বীকার করে ইউক্রেনের সংবাদ সংস্থা আরবিসিকে বলেন, ‘‘কাবুলে বা অন্য কোথাও ইউক্রেনীয় বিমান অপহরণ করা হয়নি। কিছু সংবাদমাধ্যমে প্রচারিত ‘বিমান অপহরণ’র বিষয়টি সত্য নয়।’’

নিকোলেনকো স্পষ্ট করেছিলেন যে, কাবুল থেকে নাগরিকদের উদ্ধারে কূটনীতিকদের যে অভূতপূর্ব সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছিল ইয়েনিন কেবল তার ব্যাখ্যা করেছেন। তবে এটি স্পষ্ট নয় যে কেন তিনি বিমান অপহরণের বিষয়টি বলেছেন। যদিও এটি ঘটেনি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উপমন্ত্রী বিমান অপহরণের অভিযোগ করলেও বিমানে কী ঘটেছে বা কিয়েভ বিমানটি ফেরত নেওয়ার চেষ্টা করবে কিনা তা জানাননি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here