আনন্দ-উচ্ছ্বাসে সারাদেশে ঈদ উদযাপন

0
95

খবর ৭১: ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে– সারাদেশে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উদযাপিত হচ্ছে। মাসব্যাপী সিয়াম সাধনার পর ঈদ আনন্দে মেতেছে পুরো দেশ। ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায়ের মধ্য দিয়ে শুরু হয় এই আনন্দ। কোলাকুলি করে ছোট-বড় সবাই ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করে নেন একে অন্যের সঙ্গে। আত্মীয়-স্বজনদের খোঁজ-খবর নেওয়ার মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া হয় সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির বার্তা।

শনিবার (২২ এপ্রিল) সকালে সিলেটে ঈদুল ফিতরেরর প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয় নগরীর ঐতিহাসিক শাহী ঈদগাহ ময়দানে। সকাল সাড়ে ৮টায় অনুষ্ঠিত জামাতে অংশ নিতে নগরীর বিভিন্ন এলাকা থেকে সমাগত হন হাজার হাজার মানুষ। নামাজ শেষে মুসলিম উম্মার ও দেশ- জাতির কল্যাণে দোয়া করেন বন্দরবাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা আবু হুরায়রা।

এদিকে, সিলেট মহানগরীতে এবার মোট ৪৩৭টি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে ৩৪৭টি মসজিদে ও ৯০টি ঈদগাহে আয়োজন করা হয়। এছাড়াও সিলেট জেলায় মোট ২ হাজার ৫৮৬টি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে মসজিদে ২ হাজার ২৩৯টি ও ঈদগাহে ৪৪৭টি ঈদ জামাত ছিল।

হযরত শাহজালাল (রহ.) দরগা জামে মসজিদ, হযরত শাহপরাণ (রহ.) মাজার জামে মসজিদ, সিলেট সরকারি আলীয়া মাদরাসা মাঠ, নগরীর বন্দর বাজারস্থ কালেক্টরেট জামে মসজিদ, জজ কোর্ট জামে মসজিদ, নগরীর কালীঘাট নবাবী জামে মসজিদ, টুকের বাজার শাহী ঈদগাহ ও আখালিয়া নবাবী জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৮টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

চট্টগ্রামের জমিয়তুল ফালাহ্ জাতীয় মসজিদ ময়দানে চট্টগ্রামের প্রধান ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই ঈদের নামাজে কয়েক হাজার ধর্মপ্রাণ মুসলমান অংশ নেন। সকাল ৮টায় জমিয়তুল ফালাহ ময়দানে অনুষ্ঠিত ঈদ জামাতে ইমামতি করেন জমিয়তুল ফালাহ মসজিদের খতিব হযরতুল আল্লামা সৈয়দ আবু তালেব মোহাম্মদ আলাউদ্দীন আল কাদেরী। পরে একই ময়দানে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় জামাতে ইমামতি করেন জমিয়তুল ফালাহ্ মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মৌলানা আহমুদুল হক।

এই জামাতে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, সাবেক সিটি মেয়র আজম নাসির উদ্দিনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সিনিয়র নেতারা অংশ নেন।

এছাড়া চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের তত্ত্বাবধানে সকাল ৮টায় লালদীঘি ময়দান, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন শাহী জামে মসজিদ, সুগন্ধা আবাসিক এলাকা জামে মসজিদ, হযরত শেখ ফরিদ (রহ.) চশমা ঈদগাহ মসজিদ, চকবাজার সিটি করপোরেশন জামে মসজিদ, জহুর হকার্স মার্কেট জামে মসজিদ, দক্ষিণ খুলশী (ভিআইপি) আবাসিক এলাকা জামে মসজিদ, আরেফীন নগর কেন্দ্রীয় কবরস্থান জামে মসজিদ, সাগরিকা গরুর বাজার জামে মসজিদ ও মা আয়েশা সিদ্দিকী চসিক জামে মসজিদে (সাগরিকা জহুর আহমদ চৌধুরী স্টেডিয়াম সংলগ্ন) ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়।
অপরদিকে, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় নগরীর এম এ আজিজ সংলগ্ন জিমনেশিয়ান মাঠে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রাজশাহীতে পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজ শেষে মুসলিম উম্মাহর শান্তি কামনা করে দোয়া করা হয়েছে। এছাড়া দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করে সৃষ্টিকর্তার কাছে ফরিয়াদ জানানো হয়। চলমান দাবদাহ থেকে রক্ষায় বৃষ্টিপাত চেয়েও কোথাও কোথাও মোনাজাত করা হয়।

রাজশাহীতে শনিবার সকাল ৮টায় ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয় মহানগরীর হযরত শাহ মখদুম রূপোস (রহ.) কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে। এখানে ইমামতি করেন জামেয়া ইসলামীয়া শাহ মখদুম মাদরাসার অধ্যক্ষ মুফতি শাহাদত আলী।

কেন্দ্রীয় ঈদগাহে ঈদের নামাজ আদায় করেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, বিএনপি চেয়ারপারসনের অন্যতম উপদেষ্টা ও সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনু, অপর সাবেক মেয়র ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। নামাজ শেষে তারা কোলাকুলি করেন।
এছাড়া বিভাগীয় কমিশনার জিএসএম জাফরউল্লাহ ও জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদসহ সরকারি বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা এবং সাধারণ মানুষ এখানে ঈদের নামাজ আদায় করেন। ঈদের নামাজ শেষে প্রশাসনের কর্মকর্তারাও মুসল্লিদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট) ঈদগাহে নামাজ অনুষ্ঠিত হয় সকাল সাড়ে ৭টায়।

রাজশাহী মহানগর এবং উপজেলা পর্যায়ের ঈদগাহগুলোর পরিচালনা কমিটি নিজেরা নামাজের সময় ঠিক করে নেয়। সকাল সাড়ে ৭টা থেকে সাড়ে ৮টার মধ্যে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়।

নারায়ণগঞ্জে সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের আয়োজনে জেলার সবচেয়ে বড় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। নগরীর ইসদাইর এলাকায় এ কে এম সামসুজোজাহা ক্রীড়া কমপ্লেক্স মাঠ ও কেন্দ্রীয় পৌর ঈদগাহ মাঠ সংযুক্ত করে এই ঈদের জামাতের আয়োজন করা হয়।

সকাল সাড়ে ৮টায় প্রথম জামাতে অংশ নেন সংসদ সদস্য শামীম ওসমান, ও জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজসহ বিশিষ্টজনরা। পরে ৯টায় দ্বিতীয় জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

নামাজ আদায়ের পর সংসদ সদস্য শামীম ওসমান দলীয় নেতা-কর্মীসহ পরিচিতজনদের সাথে কোলাকুলি করে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

সাতক্ষীরায় পবিত্র ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয় মুনজিতপুর কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে। জামাতে ইমামতি করেন হাফেজ মাওলানা জালাল উদ্দীন।

এই ময়দানে অনুষ্ঠিত প্রধান জামাতে অংশ নেন সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ হুমায়ুন কবির, পুলিশ সুপার কাজি মনিরুজ্জান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শেখ মঈনুল ইসলাম মঈন, কেন্দ্রীয় ঈদগাহ কমিটির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ নাজমুল হক বকুল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান প্রমুখ।

নামাজ শেষে মুসল্লিরা একে অন্যের সঙ্গে কোলাকুলি করে নিজেদের মধ্যে শুভেচ্ছ বিনিময় করেন।

নাটোরে যথাযথ মর্যাদার মধ্য দিয়ে ঈদগাহ মাঠে ঈদুল ফিতরের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। ঈদের জামাত আদায় করতে ভোর থেকে দলে দলে মুসল্লিরা ঈদগাহে প্রবেশ করেন।

শনিবার সকাল ৭টা ১৫ মিনিটে নাটোরে প্রথম ঈদের জামাত কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। নামাজে ইমামতি করেন কান্দিভিটা জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা গোলাম মোস্তফা।

পরে খুতবা শেষে দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনায় দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়া শহরের মল্লিকহাটি ঈদগাহ মাঠ, কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ মাঠ, নিচাবাজার মসজিদ মাঠ, গাড়িখানা মসজিদ মাঠ, এনএস কলেজ মাঠ, বুড়া দরগার মাঠ, হরিশপুর ঈদগাহ মাঠসহ বিভিন্ন স্থানে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here