সেই সাবমেরিন তিন টুকরো হয়ে সমুদ্রের তলায়, ৫৩ নাবিক নিহত

0
24

খবর৭১ঃ ইন্দোনেশিয়ার আলোচিত সাবমেরিনটি তিন টুকরো হয়ে সমুদ্রের তলায় চলে গেছে। এ ঘটনায় অর্ধশতাধিক নাবিক নিহত হয়েছেন।

রোববার দেশটির কর্মকর্তারা এসব তথ্য জানান। খবর বিবিসি বাংলার।

খবরে বলা হয়, কয়েকদিন আগে নিখোঁজ হয়ে যাওয়া নৌবাহিনীর সাবমেরিনটিকে তিনটি খণ্ডে টুকরো হয়ে যাওয়া অবস্থায় সমুদ্রের তলায় পাওয়া গেছে। ডুবোজাহাজটিতে যে ৫৩ জন ক্রু ছিলেন তাদের সবাই নিশ্চিতভাবে মারা গেছেন।

সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তারা রোববার বলেছেন, সাবমেরিনটির কাছ থেকে তারা বার্তা পেয়েছেন এবং এটি সমুদ্রের আটশ মিটার গভীরে ডুবে গেছে।

সিঙ্গাপুরের কাছ থেকে ধার নেওয়া একটি উদ্ধারকারী যানের সাহায্যে ছবি তুলে তারা এবিষয়ে নিশ্চিত হয়েছেন।

সাবমেরিনটি মহড়া চালানোর সময় বুধবার নিখোঁজ হয়ে যায়।

রোবাবর সামরিক বাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয় যে জাহাজের কিছু ভগ্নাবশেষ ও জায়নামাজের মতো কিছু জিনিস উদ্ধার করার পর তারা নিশ্চিত হন যে জাহাজটি ডুবে গেছে।

স্ক্যান থেকে পাওয়া তথ্যে জানা গেছে, সাবমেরিনটি সমুদ্রের সাড়ে আটশ মিটার গভীরে নিমজ্জিত অবস্থায় রয়েছে, সচল অবস্থায় এত গভীরে যাওয়ার সক্ষমতা এই সাবমেরিনের নেই।

নৌবাহিনীর প্রধান ইওদো মারগোনো বলেছেন, জাহাজ থেকে ভেসে আসা আরো কিছু জিনিস উদ্ধার করা হয়েছে। এসবের মধ্যে রয়েছে সাবমেরিনের নোঙর এবং ক্রুদের নিরাপত্তা স্যুট।

তিনি বলেন, “কেআরআই নানগালা ভেঙে তিন টুকরো হয়ে গেছে। জাহাজের খোল, জাহাজের পেছনের অংশ এবং জাহাজের মূল অংশ- সব আলাদা হয়ে গেছে। প্রধান অংশও ভেঙে গেছে,” বলেন তিনি।

এর আগে কর্মকর্তারা বলেছিলেন, জাহাজটি যখন নিখোঁজ হয়ে যায় তখন তাতে তিনদিনের অক্সিজেন মজুদ ছিল।

এর আগে শনিবার নৌবাহিনীর প্রধান ইওদো মারগোনো বলেছেন যেখান থেকে সাবমেরিনটি নিখোঁজ হয়েছে তার কাছেই এর কিছু অংশ পাওয়া গেছে।

তিনি বলেছেন, স্ক্যান করে দেখা গেছে ডুবোজাহাজটি সমুদ্রের যতোটা গভীরে চলাচল করতে পারে, এটি তার চেয়েও অনেক গভীরে তলিয়ে গেছে এবং একারণেই তারা সাবমেরিনটি ডুবে যাওয়ার কথা ঘোষণা করছেন।

বালি দ্বীপের কাছে সমুদ্রে মহড়া চালানোর সময় সাবমেরিনটির সঙ্গে বুধবার সকালে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এসময় এটি ডুব দেওয়ার জন্য অনুমতি চাইছিল।

জার্মানির তৈরি এই ডুবোজাহাজটি ৪০ বছরেরও বেশি পুরনো। তবে ২০১২ সালে এতে কিছু কাজ করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here