জি-২০ সম্মেলনে যোগ দিতে চান পুতিন

0
69

খবর৭১ঃ বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতির ২০টি দেশের জোট জি-২০ তে রাশিয়াকে রাখা উচিত কিনা তা যুক্তরাষ্ট্র ও তাদের পশ্চিমা মিত্ররা পর্যালোচনা করেছে।

এমন পরিস্থিতিতে আগামী নভেম্বরে ইন্দোনেশিয়ার বালিতে অনুষ্ঠেয় জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে আগ্রহী রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে পুতিনের এমন আগ্রহের কথা জানিয়েছেন ইন্দোনেশিয়ায় নিযুক্ত রুশ রাষ্ট্রদূত লুডমিলা ভোরোবিভা।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, শুধু জি-২০ নয়, অনেক সংস্থাই রাশিয়াকে বহিষ্কারের চেষ্টা করছে। পশ্চিমা দুনিয়ার প্রতিক্রিয়া একেবারেই অসামঞ্জস্যপূর্ণ।

এদিকে জি-২০ থেকে রাশিয়াকে রিপ্লেস করতে পোল্যান্ড মঙ্গলবার মার্কিন কর্মকর্তাদের পরামর্শ দিয়েছে। এর জবাবে ‘ইতিবাচক সাড়া’ পেয়েছে দেশটি।

চলতি সপ্তাহে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ব্রাসেলসে মিত্রদের সঙ্গে বৈঠকে রাশিয়াকে জি-২০ থেকে বের করে দেওয়ার জন্য চাপ দেবেন কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জেইক সুলিভান হোয়াইট হাউসে সাংবাদিকদের বলেন, আমরা বিশ্বাস করি আন্তর্জাতিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে রাশিয়ার ব্যবসা স্বাভাবিকভাবে চলতে পারে না।

তবে এ ধরনের কোনো ঘোষণার আগে মিত্রদের সঙ্গে আলোচনার পরিকল্পনা যুক্তরাষ্ট্রের আছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

শিল্পোন্নত ৭ দেশের জোট জি-৭ এর উচ্চপর্যায়ের একটি সূত্র রয়টার্সকে বলেছে, রাশিয়া জি-২০ এর অংশীদার থাকার উপযুক্ত কিনা তা নিয়ে আলোচনা চলছে। রাশিয়া যদি সদস্য থাকে, তাহলে এটি দিন দিন কম দরকারি একটি সংগঠনে পরিণত হবে।

জি২০-র আসন্ন বৈঠকগুলোতে রাশিয়ার থাকা না থাকা নিয়ে আলোচনা চলছে বলে ইউরোপীয় ইউনিয়নের একটি সূত্রও পৃথকভাবে জানিয়েছে।

জি-২০ এর সভাপতির পদে ঘুরে ঘুরে একটির পর একটি দেশ আসে, এখন এ পদে আছে ইন্দোনেশিয়া।

ইউরোপীয় সূত্রটি বলেছে, আসন্ন মন্ত্রিপর্যায়ের বৈঠকগুলোতে রাশিয়ার উপস্থিতি ইউরোপীয় দেশগুলোর জন্য যে খুবই সমস্যার হবে তা ইন্দোনেশিয়ারে কাছে স্পষ্ট করা হয়েছে।

তবে জি-২০’র বৈঠকগুলো থেকে সদস্য দেশগুলোর কাউকে বাদ দেওয়ার কোনো পদ্ধতি নেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here