রাজধানীর হাসপাতালে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগী, মুগদায় দুজনের মৃত্যু

0
18

খবর৭১ঃ

চলতি মাসের শুরু থেকেই রাজধানীসহ সারা দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ ব্যাপক বেড়েছে। মশাবাহী এই রোগে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর হাসপাতালগুলোতে দৈনিক ভর্তির সংখ্যা বেড়েই চলছে, যা পরিস্থিতি খারাপের দিকেই ইঙ্গিত করছে। মঙ্গলবার মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে দুজনের মৃত্যু হয়েছে।

পরিস্থিতি খারাপের দিকে গেলেও সচেতনতা বাড়েনি বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। তাই অন্যান্য বছরের মতো চলতি বছরও বিশাল সংখ্যক মানুষ ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হচ্ছেন এবং অনেকে মারা যাচ্ছেন। কিন্তু একটু সচেতন হলেই ডেঙ্গু থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

মঙ্গলবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার অ্যান্ড কন্ট্রোল রুমের নিয়মিত ডেঙ্গু বিষয়ক প্রতিবেদন বলছে, দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ সময়ে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ৪৩৮ জন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন, যা এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ। সব মিলিয়ে বর্তমানে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি থাকা ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৫৬০ জনে। তবে এ সময়ে নতুন কোনো রোগীর মৃত্যু হয়নি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, রাজধানীর মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে মঙ্গলবারই (২০ সেপ্টেম্বর) নতুন ৪২ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছে।

হাসপাতালের ডাটা এন্ট্রি অপারেটর মাহমুদা আক্তার লিজা জানান, মঙ্গলবার দুজন ডেঙ্গু রোগী মারা গেছে এবং সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ২২ জন।

তবে মুগদায় দুজনের মৃত্যুর তথ্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের গত ২৪ ঘণ্টার প্রতিবেদনে আসেনি। এটি পরের ২৪ ঘণ্টার তথ্যে যুক্ত হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

এছাড়া ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মঙ্গলবার ভর্তি হয়েছে ২৯ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৩ জন। পুরোপুরি সুস্থ না হলেও পরিবারের অনুরোধে বাড়ি ফিরেছেন তিন জন। তবে ঢাকা মেডিকেলে ডেঙ্গুতে নতুন কোনো রোগীর মৃত্যু হয়নি বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

ময়নুল হক নাম একজন বলেন, মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে সোমবার ভর্তি করিয়েছি আমার ছোট ভাইকে। জ্বরে আক্রান্ত থাকা অবস্থায় নিয়ে এসেছি তাকে। হাসপাতালে পরীক্ষা করার পর জানা গেছে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছে। ফলে বাধ্য হয়ে ভর্তি করিয়েছি হাসপাতালে।

ময়নুল হক বলেন, আমার ভাইকে হাসপাতালে না আনলে জানতামই না এতো বেশি ডেঙ্গু রোগী ভর্তি আছে এখানে।

মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. নিয়াতুজ্জামান বলেন, মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছেই। আজ মঙ্গলবার ৯৬ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী ভর্তি আছে। এর মধ্যে শুধু মঙ্গলবারই নতুন ভর্তি হয়েছে ৪২ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি গেছেন ২২ জন ডেঙ্গু রোগী। শিশু ডেঙ্গু আক্রান্ত আছে ১৮ জন।

নিয়াতুজ্জামান বলেন, মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে সেপ্টেম্বরের শুরু থেকে ক্রমাগত বেড়েই চলছে ডেঙ্গু রোগী। প্রতিদিন ডেঙ্গু রোগী ভর্তির হার বাড়ছেই। ঢাকার সব এলাকা থেকে আমাদের হাসপাতালে রোগী ভর্তি হচ্ছে। রাজধানীর বাইরে থেকেও রোগীদের আগমন দেখার মতো। যেমন শরীয়তপুর, মাদারীপুর, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, কুমিল্লার রোগীরাও ভর্তি আছে আমাদের হাসপাতালে।

নিয়াতুজ্জামান বলেন, মূলত এডিস মশার কামড় এড়িয়ে চলাই ডেঙ্গু প্রতিরোধের প্রধান উপায়। তাই মশার আবাসস্থল ধ্বংস করে মশার বংশবিস্তার প্রতিরোধ করতে হবে। এ জন্য এডিস মশার বংশবিস্তারের উপযোগী বিভিন্ন আধারে, যেমন: কাপ, টব, টায়ার, ডাবের খোলস, গর্ত, ছাদ ইত্যাদিতে আটকে থাকা পানি অপসারণ করতে হবে।

মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের পরিচালক বলেন, সিটি করপোরেশনের নজরদারি আরো বাড়ানো উচিত। প্রতিটি এলাকায় ডেঙ্গু নিধন কর্মসূচির দিকে একটু বেশি জোর দিতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here