জীবনের শ্রেষ্ঠ দশদিন

0
115

খবর৭১ঃ অর্থনীতিতে একটি বহুল প্রচলিত প্রবাদ হল, ‘দেয়ার ইজ নো সাচ এ থিং অ্যাজ এ ফ্রি লাঞ্চ’। সোজা বাংলায় যাকে বলে ‘কিছু পেতে হলে কিছু দিতে হয়’।

আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’আলা তাঁর মু’মিন বান্দাদের পুরস্কারস্বরূপ বছরের দুইটি শ্রেষ্ঠ দিন দিয়েছেন। ঈদ-উল-ফিতর এবং ঈদ-উল-আযহা। আমরা সবাই একথা জানি যে ঈদ মানে আনন্দ এবং ঈদ মানে খুশি। আসলেই কি তাই? সবাই কি ঈদের দিন সেই আনন্দ ও খুশি হৃদয়ে অনুভব করি? এই আনন্দই বা কিসের আনন্দ? কোথায় এই খুশির উৎস?

এই খুশি বা আনন্দ হল- নিজের করা ইবাদাত কবুল হওয়ার আনন্দ! নিজের জানা-অজানায় করে ফেলা গোনাহ থেকে মুক্তি পাওয়ার খুশি। তাই ঈদের সত্যিকারের খুশি পেতে হলে ইবাদাতের কঠোর পরিশ্রম করতে হবে।

কোরআনে উল্লেখিত প্রায় সব বিষয়ই হচ্ছে শর্ত সাপেক্ষ (Conditional)। অর্থাৎ প্রত্যেক কাজের ফলাফল (প্রতিক্রিয়া) তার ক্রিয়ার উপর নির্ভরশীল। চেকলিস্ট ফুলফিল করলেই কেবলমাত্র ফলাফল পাওয়া যাবে। এই সিস্টেমের ব্যতিক্রম একমাত্র আল্লাহ্‌র রহমত ও ক্ষমা, যা কিনা যাবতীয় শর্তের ঊর্ধে (unconditional)। তাহলে ঈদের দিনে মনে আনন্দ বা খুশি অনুভব করার পূর্বশর্ত কী?

মুসলিমদের জন্যে দুই ঈদ হলো মূলত ইবাদাতের দুই ভরা মৌসুম। ঈদ-উল-ফিতরের আগে রয়েছে বছরের শ্রেষ্ঠ দশ রাত। আর ঈদ-উল আযহার আগে রয়েছে আল্লাহর কাছে সবচেয়ে প্রিয়- বছরের শ্রেষ্ঠ দশ দিন।

ইবন আব্বাস রাদিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘এমন কোনো দিন নেই যার আমল জিলহজ্জ মাসের এই দশ দিনের আমল থেকে আল্লাহর কাছে অধিক প্রিয়। সাহাবায়ে কিরাম বললেন, হে আল্লাহর রাসূল! আল্লাহর পথে জিহাদও নয়? রাসূলুল্লাহ বললেন, আল্লাহর পথে জিহাদও নয়। তবে যে ব্যক্তি তার জান-মাল নিয়ে আল্লাহর পথে যুদ্ধে বের হল এবং এর কোনো কিছু নিয়েই ফেরত এলো না (তার কথা ভিন্ন)।’ [বুখারী : ৯৬৯; আবূ দাউদ : ২৪৪০; তিরমিযী : ৭৫৭]

রামাদান মাস যেমন বছরের মধ্যে শ্রেষ্ঠ মাস তেমনি জিলহজ্জের এই দশদিন হচ্ছে বছরের শ্রেষ্ঠ দশ দিন। সকল মুফাসসির এ ব্যাপারে একমত যে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’আলা কুরআনুল কারীমের সূরা ফাজরে যে দশ দিনের শপথ করেছেন তা জিলহজ্জ মাসের প্রথম দশদিন।

আমাদের কাছে জীবনের সেরা দিন কোনটি? কারো কাছে বাবা-মা হওয়ার দিনটি তার জীবনের শ্রেষ্ঠ দিন। আবার কারো কাছে গ্রাজুয়েট হওয়ার দিন কিংবা স্বপ্নের চাকরি প্রাপ্তির দিনটি তার জীবনের সেরা দিন। আর হাদীসে এসেছে, দুনিয়ার জীবনের শ্রেষ্ঠ দশদিন হচ্ছে জিলহজ্জ মাসের প্রথম দশদিন! আর তাই বছরের শ্রেষ্ঠ এই দশ দিনের ইবাদাত আল্লাহর কাছে অত্যন্ত প্রিয়।

ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভঃ ঈমান(কালেমা), নামায, যাকাত, রোজা, এবং হজ্জ। বছরে মাত্র একবার এই পাঁচটি ইবাদাতের চমৎকার সমন্বয় ঘটে কেবলমাত্র জিলহজ্জ মাসের প্রথম দশদিনে। বছরের অন্যান্য দিনের মতো এই সময় আমাদের ঈমান থাকে। আবার অন্যান্য সময়ের মতো এই দশ দিন নামায ও যাকাত আদায় করা যায়। এছাড়া আরাফার দিনের বিশেষ রোজা ছাড়াও হাদিসে এই দশ দিনের প্রতিদিন রোজা রাখার ব্যাপারে বিশেষ তাগিদ রয়েছে। ইসলামের অন্যতম স্তম্ভ হজ্জ এই সময়েই আদায় করা হয়। কোরবানী আদায় করা হয় এই দশকে। অর্থাৎ ইসলামে বর্ণিত ইবাদাতের পাঁচটি স্তম্ভ ছাড়াও আরো অনেক ইবাদাত এই দশদিনে প্রতিষ্ঠিত হয়। সেজন্যেই আল্লাহর কাছে এই দশ দিনের মাহাত্ম্য অনেক বেশি।

রামাদানের শেষ দশ রাতে যেমন রয়েছে হাজার মাসের থেকেও উত্তম রজনী শবে-কদর। তেমনি, জিলহজ্জ মাসের দশ দিনের মধ্যে রয়েছে আরাফার দিন। যে দিন আল্লাহর কাছে থেকে ক্ষমা ও মাগফিরাত পাওয়ার দিন। জাহান্নাম থেকে মুক্তি পাওয়ার দিন। জিলহজ্জ মাসের গুরুত্বের জন্যে এক আরাফার দিন থাকাই যথেষ্ঠ ছিল। সেই সাথে এই দশকেই আছে কোরবানীর দিন। একেবারে ইবাদাতে পরিপূর্ণ দশটি দিন।

আবদুল্লাহ ইবন উমর রাদ্বিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, “এই দশ দিনে নেক আমল করার চেয়ে আল্লাহর কাছে বেশি প্রিয় ও মহান কোন আমল নেই। তাই তোমরা এ সময়ে তাহলীল (লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহ), তাকবীর (আল্লাহু আকবার) ও তাহমীদ (আলহামদুলিল্লাহ) বেশি বেশি করে পড়।” [মুসনাদ আমহদ : ১৩২; বাইহাকী, শুআবুল ঈমান : ৩৪৭৪; মুসনাদ আবী আওয়ানা : ৩০২৪]

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here