বঙ্গভ্যাক্স’ মানবশরীরে ট্রায়ালের নীতিগত অনুমোদন

0
21

খবর৭১ঃ দেশীয় ওষুধ প্রস্তুতকারক কোম্পানি গ্লোব বায়েটেক উদ্বাবিত কোভিড টিকা ‘বঙ্গভ্যাক্স’ মানবশরীরে ট্রায়ালের নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ মেডিক্যাল রিসার্চ কাউন্সিল (বিএমআরসি)।

শর্তসাপেক্ষে মানব শরীরে বঙ্গভ্যাক্স ফেজ-১ ট্রায়াল চালাতে গ্লোব বায়েটেককে অনুমোদন দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিএমআরসির পরিচালক অধ্যাপক ডা. রুহুল আমিন। তিনি বলেন, গ্লোব বায়োটেককে ফেজ-১ ট্রায়ালের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। শর্ত অনুযায়ী তারা এর ট্রায়াল পরিচালনা করবে।

এর আগে প্রানীদেহে টিকাটির ট্রায়াল সফল হয়েছিল বলে জানিয়েছিল দেশীয় ওষুধ প্রস্তুতকারক কোম্পানিটি। করোনার ডেল্টা ধরণসহ সব ধরণের জন্য বঙ্গভ্যাক্স কার্যকর বলে অ্যানিমেল ট্রায়ালে সাফল্য মিলেছে বলেও জানিয়েছিল তারা।

গত ১ নভেম্বর বানরের দেহে চালানো পরীক্ষার ফলাফল সংক্রান্ত প্রতিবেদন জমা দেয় গ্লোব বায়োটেক। প্রতিবেদন জমার পর গত রবিবার বৈঠকে বসে বিএমআরসির ন্যাশনাল রিসার্চ ইথিকস কমিটি। ওইদিনের উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক থেকেই মূলত টিকাটি মানবদেহে পরীক্ষার অনুমোদন মেলে।

গ্লোব বায়োটেক বলছে, বঙ্গভ্যাক্স টিকাটি এমআরএনএ (মেসেঞ্জার রাইবোনিউক্লিক এসিড) দিয়ে তৈরি। তাই এক ডোজের এই টিকাটি নিরাপদ ও কার্যকর হওয়ার সুযোগ রয়েছে।

বাংলাদেশে কোভিড-১৯ শনাক্ত হওয়ার পর দেশিয় ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান গ্লোব ফার্মাসিউটিক্যালস গ্রুপ অব কোম্পানিজ লিমিটেডের সহযোগী প্রতিষ্ঠান গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড ২০২০ সালের ২ জুলাই দেশে প্রথমবারের মতো কোভিড-১৯ (করোনাভাইরাস) রোগের টিকা (ভ্যাকসিন) আবিষ্কারের ঘোষণা দেয়।

এর প্রায় সাড়ে তিন মাসের মাথায় ১৫ অক্টোবর গ্লোব বায়োটেকের তিনটি টিকাকে (ডি সিক্স ওয়ান ফোর জি ভেরিয়েন্ট এমআরএনএ ভ্যাক্সিন, ডিএনএ প্লাজমিড ভ্যাক্সিনস এবং অ্যাডনোভাইরাস টাইপ-৫ ভেক্টর ভ্যাক্সিন) সম্ভাব্য টিকাপ্রার্থীর তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। গ্লোব বায়োটেকই বিশ্বের একমাত্র প্রতিষ্ঠান যাদের সর্বোচ্চ তিনটি ভ্যাক্সিনের নাম তালিকায় রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here