ফিরে যেতে সরকারের সহযোগিতা চেয়েছিলেন মালয়েশিয়া প্রবাসীরা

0
74

খবর ৭১: দেশে আটকে পড়া মালয়েশিয়া প্রবাসীদের ফিরে যেতে সরকার সহযোগিতা করেনি, এমন অভিযোগে আন্দোলনে নামতে যাচ্ছেন প্রবাসীরা। ছুটিতে আসা এই প্রবাসীরা গত বছর থেকে কর্মস্থলে ফিরে যেতে সরকারের সহযোগিতা চেয়েছিলেন। তবে, এ পর্যন্ত কোন সমাধান না পেয়ে তারা এবার আন্দোলনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আগামী ১ জুন ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করবেন প্রবাসীরা।

বিষয়টি নিশ্চিত করে মানববন্ধন আয়োজনের অন্যতম উদ্যোক্তা ইসমাইল মোহাম্মদ আজ শুক্রবার  বলেন, ‘আমরা আশায় আশায় অনেক দিন অপেক্ষা করেছি, কোন সুফল পাইনি। আমরা চাই, সরকার যেন কূটনীতিক উদ্যোগ নিয়ে আমাদের ফেরত পাঠানোর ব্যবস্থা করে। অগ্রাধিকার দিয়ে প্রবাসীদের যেন ভ্যাকসিন দেওয়া হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘সৌদি আরব প্রবাসীদের হোটেলে কোয়ারেন্টিনের জন্য সরকার ভর্তুকি দেবে, এটা ভালো উদ্যোগ। তবে সৌদি আরব শুধু নয়, সব প্রবাসীদের হোটেলে কোয়ারেন্টিনের ক্ষেত্রে একই রকম ভর্তুকির দাবি জানাবো আমরা।’

১ জুন জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধনে যেসব দাবি তুলে ধরা হবে সেগুলো হলো–প্রবাসী কর্মীদের পাসপোর্টের ভিত্তিতে অগ্রাধিকার দিয়ে ভ্যাকসিন দেওয়া, শিগগির মালয়েশিয়ায় ফিরতে কূটনৈতিক তৎপরতা বৃদ্ধি, সৌদি প্রবাসীদের মতো মালয়েশিয়ায় কোয়ারেন্টিন খরচে সরকারের ভর্তুকি দেওয়া ইত্যাদি।

জানা গেছে, প্রায় ১৪ মাসের বেশি সময় ধরে আটকে আছেন ছুটিতে দেশে আসা অন্তত ২৫ হাজার মালয়েশিয়া প্রবাসী। গত বছরের সেপ্টেম্বর, নভেম্বর মাসে ঢাকায় প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়েও যোগাযোগ করেন তারা। তবে কোন সুফল না পেয়ে এবার আন্দোলনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা।

করোনাভাইরাসের মহামারির কারণে বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ার আকাশপথ যোগাযোগ বন্ধ হয় ২০২০ সালের মার্চে। পরবর্তীতে জুলাই মাসে শর্ত সাপেক্ষে ট্রানজিট যাত্রী ও মালয়েশিয়ার রেসিডেন্স পারমিটধারী, পেশাজীবী, শিক্ষার্থীদের প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়। তবে, বাংলাদেশি প্রবাসী শ্রমিকদের মালয়েশিয়ায় যেতে ও দেশে ফেরার সুযোগ দেওয়া হয়নি। মালয়েশিয়ার দীর্ঘসূত্রিতা ও কঠিন শর্তের কারণে অনেক প্রবাসী কাজে ফিরে যেতে পারেননি।

এর আগে, গত বছর নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে ভিসার মেয়াদ বৃদ্ধি ও মালয়েশিয়ায় ফেরার দাবি নিয়ে কয়েক হাজার প্রবাসী পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ঘেরাও করেছিলেন। পরে পররাষ্ট্র সচিবের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে তারা কর্মসূচি প্রত্যাহার করেছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here