কিউইদের কাছে হোয়াইটওয়াশ হলো টাইগাররা

0
37

খবর৭১ঃ প্রথম দুই ওয়ানডে ম্যাচ হেরে আগেই সিরিজ খুইয়েছে সফররত বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। এবার জিততে পারল না তৃতীয় এবং শেষ ম্যাচেও। ওয়েলিংটন অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১৬৪ রানের বড় ব্যবধানে হেরে হোয়াইটওয়াশ হলো টাইগাররা।

জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে কিউই পেসার ম্যাট হেনরির বোলিং তোপে ব্যাটিং বিপর্যয়েই পড়ে সফররত বাংলাদেশ। ওপেনিং করতে নেমে মাত্র ১ করেই সাজঘরে ফেরেন টাইগার অধিনায়ক তামিম ইকবাল। পরের উইকেটে ব্যাট করতে নামা সৌম্য সরকারও আউট হয়েছেন ব্যক্তিগত ১ রানে। আর লিটন দাস ফেরেন ২১ রান করে। এই তিন বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানকেই ফেরান ম্যাট হেনরি।

এরপর মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে ক্রিজে খুঁটি গেড়েছিলেন মোহাম্মদ মিঠুন। কিন্তু তিনিও বেশিক্ষণ টিকতে পারেনি। কাইল জেমিসনের বলে আউট হয়ে ফেরেন তিনি। আর মুশফিক ফেরেন ব্যক্তিগত ২১ রানে।

বাংলাদেশ দলের দুই উদীয়মান অলরাউন্ডার মেহেদি হাসান মিরাজ এবং শেখ মেহেদি হাসানও দলের জন্য কিছুই করতে পারেননি। শূন্যরানেই নিশামের বলে ফেরেন মিরাজ। আর আউট হওয়ার পূর্বে মাত্র ৩ রান করেছেন শেখ মেহেদি।

অষ্টম উইকেট জুটিতে তাসকিন নিয়ে দলীয় স্কোরে কিছু রান যোগ করেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ্। তাসকিন আউট হয়েছেন ৯ রানে। পরের উইকেটে রুবেল হোসেনকে সঙ্গে নিয়ে ৫২ রানের জুটি গড়েন মাহমুদউল্লাহ। আর এটিই আজকে বাংলাদেশের ইনিংসের সর্বোচ্চ রানের জুটি। রুবেল ফেরেন ৪ রানে। আর শেষ উইকেটে ব্যাট করতে আসা মোস্তাফিজুর রহমান কোনো রান করতে পারেননি।

এদিকে ৭৩ বলে ছয়টি চার এবং চারটি ছয়ে ৭৬ রান করে অপরাজিতই থাকেন রিয়াদ।

নিউজিল্যান্ডের হয়ে সর্বোচ্চ চারটি উইকেট নিয়েছেন ম্যাট হেনরি। এছাড়া তিনটি উইকেট নিয়েছেন জিমি নিশাম।

ম্যাচের শুরুতে ব্যাট করতে নেমে ডেভন কনওয়ে এবং ড্যারেল মিচেলের অভিষেক সেঞ্চুরিতে নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ৬ উইকেটে ৩১৮ রান সংগ্রহ করে টম লাথাম বাহিনী। জবাবে ব্যাট করতে নেমে সবকটি উইকেট হারিয়ে ১৫৪ রানেই থেমেছে রাসেল ডোমিঙ্গোর শিষ্যদের ইনিংস।

টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ওপেনিং জুটিতে ৪৪ রান তুলেন দুই কিউই ব্যাটসম্যান মার্টিন গাপটিল ও হেনরি নিকোলস। ব্যক্তিগত ১৮ রানে তাসকিনের বলে আউট হয়েছেন নিকোলস। ২৬ রানে রুবেলের বলে ফিরেছেন গাপটিল। আর দুই ম্যাচ পর মাঠে ফেরা রস টেইলর সাজঘরে ফেরেন মাত্র ৭ রানে। অধিনায়ক টম লাথামের ব্যাট থেকে এসেছে মাত্র ১৮ রান।

ব্যাট হাতে প্রথমে কেউ সুবিধা করতে না পারলেও পঞ্চম উইকেট পার্টনারশিপে ডেভন কনওয়ে এবং ড্যারেল মিচেলের গড়া ১৪৯ রানের জুটিতে রানের পাহাড় গড়তে থাকে স্বাগতিকরা। দুজনই তুলে নেন ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি।

১১০ বলে ১২৬ রানে কনওয়ে ফিরলেও মিচেল খেলে গেছেন শেষ পর্যন্ত। ৯২ বলে ১০০ রান করে অপরাজিত ছিলেন তিনি। এছাড়া মিচেল স্যান্টনার অপরাজিত থাকেন ৩ রানে।

বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩টি উইকেট নেন রুবেল হোসেন। এছাড়া একটি করে উইকেট নেন মোস্তাফিজুর রহমান, তাসকিন আহমেদ ও সৌম্য সরকার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here