ফেলনা নয় আলুর খোসা

0
74

খবর৭১ঃ আমাদের নিত্যদিনের খাবারের মধ্যে অন্যতম একটি হলো আলু। বেশিরভাগ রান্নায় আলু ব্যবহার করলেও এর খোসা ফেলে দেয়া হয়। তবে আপনি জেনে অবাক হবেন যে আলুর খোসা ফেলনা নয়। এতে থাকে ফোলেট, ম্যাগনেশিয়াম, পটাশিয়াম, ফসফরাস ও ভিটামিন সি।

আলুর খোসা রাইন্ড পটাসিয়ামের একটি দুর্দান্ত উৎস। আপনি যদি আলুর খোসা খান তবে এটি আপনার বিপাক বাড়াতে সাহায্য করবে। আলুর খোসায় প্রচুর আয়রন থাকে যা লোহিত রক্তকণিকার কার্যকারিতা বাড়ায়।

আপনি এতে প্রচুর ভিটামিন-বিথ্রি পাবেন যা পুষ্টিগুলো ভেঙে দেয় এবং জ্বালানের মতো কাজ করতে সহায়তা করে। এছাড়াও এটি আপনার কোষগুলোকে শারীরিক চাপ কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করে। আলুর ত্বক আপনাকে ভালো পরিমাণে ফাইবার দেয়। ফাইবার ক্যানসার, হৃদরোগ এবং টাইপ-টু ডায়াবেটিসের ঝুঁকি হ্রাস করে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে

আলুর ত্বক বা খোসাও আপনার হৃদয়কে সঠিকভাবে কাজ করতে সহায়তা করে। আপনি যদি জৈব আলুর খোসা খান তবে এটি আপনার রক্তচাপকে তার খনিজগুলো- পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং ক্যালসিয়ামের মাধ্যমে প্রাকৃতিকভাবে পরিচালনা করতে সহায়তা করবে।

হাড়ের জন্য ভালো

আলুর খোসার মধ্যে কিছু খনিজ থাকে যা হাড়ের গঠন এবং দৃঢ়তা বজায় রাখতে সাহায্য করে। এই পুষ্টির মধ্যে রয়েছে আয়রন, পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, ক্যালসিয়াম, তামা এবং দস্তা। দেহে প্রায় ৫০-৬০ শতাংশ ম্যাগনেসিয়াম থাকে হাড়ে। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, আলুর খোসা হাড়ের ঘনত্ব বজায় রাখতে সহায়তা করে এবং মেনোপজের পরে মহিলাদের অস্টিওপরোসিসের ঝুঁকিও হ্রাস করতে পারে।

ক্যানসার প্রতিরোধে

আলুর খোসার ফাইটোকেমিক্যালস প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায় যা একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এছাড়াও, এতে প্রচুর পরিমাণে ক্লোরোজেনিক অ্যাসিড রয়েছে যা কার্সিনোজেন (ক্যানসার সৃষ্টিকারী যৌগ) এর সঙ্গে আবদ্ধ হয় এবং শরীরকে ক্যানসারের থেকে রক্ষা করে।

রক্তে কোলেস্টেরল কমায়

অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস, পলিফেনলস এবং গ্লাইকোক্যালয়েডগুলির সঙ্গে মিলিত আলুর খোসার মধ্যে পাওয়া উচ্চ ফাইবার কার্যকরভাবে দেহের কোলেস্টেরল হ্রাস করতে কার্যকরভাবে কাজ করে। আপনি যদি স্বাস্থ্যকরভাবে বাঁচতে চান তবে আপনার ডায়েটে খোসাসহ আলু খাওয়া ভাল।

হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করে

যেহেতু আলুর খোসা একটি গুরুত্বপূর্ণ এবং অপরিহার্য খনিজ হিসাবে পটাসিয়ামে পূর্ণ, সেগুলি সেবন করা হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি হ্রাস করে। এর কারণ হলো রক্তচাপ কমাতে এবং হার্টকে সুস্থ রাখতে পটাসিয়াম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আলুর খোসাতে ওমেগা-থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিডও থাকে।

রক্তে শর্করার মাত্রা বজায় রাখে

ডায়াবেটিসের কারণে আপনার ঘন ঘন খিদে পেতে পারে। তাই আপনার ডায়েটে আলুর খোসা থাকলে ভালো। এটি বারবার খাওয়ার অভ্যাস এড়াতে সাহায্য করে। আলুর খোসার ফাইবারের উপাদান থাকা ছাড়াও অনেকগুলো প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান রয়েছে যা দেহে রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়তে বাধা দেয়।

ত্বকের যত্নে

আলুর খোসা ত্বকের সমস্যার জন্য খুব ভালো। ত্বককে সাদা করতে, পিম্পলস, ব্ল্যাকহেডস এবং হোয়াইটহেডস দূর করতে ও অতিরিক্ত তেল হ্রাস করতে আলুর খোসা ব্যবহার করতে পারেন। আপনাকে যা করতে হবে তা হোল তুলার সাহায্যে ক্ষতিগ্রস্ত স্থানে আলুর রস প্রয়োগ করুন। এটি ১৫-২০ মিনিটের জন্য রাখুন এবং তারপর উষ্ণ গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here