‘ডিআরইউ শিশু-কিশোর সাংস্কৃতিক উৎসব-২০২১’ অনুষ্ঠিত

0
84

খবর ৭১: ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সদস্য সন্তানদের অংশগ্রহণে বর্ণাঢ্য আয়োজনে অনুষ্ঠিত হলো ‘শিশু-কিশোর সাংস্কৃতিক উৎসব-২০২১।’ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে সংগঠনের পূর্বঘোষিত মাসব্যাপী কর্মর্সূচীর অংশ হিসেবে আজ ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবসে’ দিনব্যাপী চিত্রাঙ্কন, আবৃত্তি ও গানের প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

উৎসব উপলক্ষে সাজসজ্জা করা হয় ডিআরইউ প্রাঙ্গণ। দিনব্যাপী এ আনন্দ আয়োজনে সদস্য সন্তান ও সদস্যদের উপস্থিতিতে মুখরিত ছিল ডিআরইউ চত্বর। ক্যান্টিনে আয়োজন ছিল বিশেষ খাবারের। অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের ইতি টানা হয়।

সকাল ১০টায় সংগঠনের নসরুল হামিদ মিলনায়তনে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার মাধ্যমে শুরু হয় উৎসব। বিকাল ৩টায় সাগর-রুনী মিলনায়তনে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের হাতে উপহার তুলে দেন বাংলাদেশ শিশু একাডেমির চেয়ারম্যান লাকী ইনাম। অনুষ্ঠানে তিনি শিশু-কিশোরদের সৎ ও আত্মপ্রত্যয়ী হয়ে গড়ে ওঠার আহবান জানান। তিনি বলেন, শিশু-কিশোরদের সংস্কৃতি চর্চার মাধ্যমে দেশ-ইতিহাস-ঐতিহ্য জানতে হবে। এই শিশুরাই আগামীতে দেশের নেতৃত্ব দেবে।

সাংস্কৃতিক উৎসবে বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন (সঙ্গীতে) সুরকার, গীতিকার ও সঙ্গীত পরিচালক মান্নান মোহাম্মদ, ইথুন বাবু ও হাসান মাহমুদ। (আবৃত্তিতে) আবৃত্তি শিল্পী ও সংগঠক মাসুম আজিজুল বাসার ও আদ্রিতা সরকার। (চিত্রাঙ্কনে) বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন চিত্রশিল্পী মনিরুল ইসলাম মনির ও হাসানুজ্জামান।

দিনব্যাপী এই আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন ডিআরইউ’র সভাপতি মুরসালিন নোমানী, সাধারণ সম্পাদক মসিউর রহমান খান, সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক ও সাংগঠনিক সম্পাদক মাইনুল হাসান সোহেল, উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব এবং প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মাইদুর রহমান রুবেল, সাংস্কৃতিক সম্পাদক মিজান চৌধুরী, ক্রীড়া সম্পাদক মাকসুদা লিসা, কার্যনির্বাহী সদস্য এম এম জসিম, রহমান আজিজ প্রমুখ।

এ ছাড়া বিকেলে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে আরও অংশ নেন যুগ্ম সম্পাদক আরাফাত দাড়িয়া, অর্থ সম্পাদক শাহ আলম নূর, দপ্তর সম্পাদক জাফর ইকবাল, তথ্য প্রযুক্তি ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক হালিম মোহাম্মদ, কার্যনির্বাহী সদস্য মোঃ মাহবুবুর রহমান, রফিক রাফি ও নার্গিস জুঁই।

পুরস্কারপ্রাপ্তরা হলেন- ক-বিভাগ (সঙ্গীতে) রানা তাবাসসুম তীর্ণা, প্রজন্ম প্রকৃতি প্রাশ্মিক, সানদিহা জাহান দিবা ও অংকন দাস। (আবৃত্তিতে) আনান মুস্তাফিজ, প্রজন্ম প্রকৃতি প্রাশ্মিক, জান্নাতুল বারিষা বিনতে বাতেন। (চিত্রাঙ্কনে) মোস্তফা নূর মাশরুর, অংকন দাস ও আম্মার সামী।

খ-বিভাগ (সঙ্গীতে) অনুভব আলম প্রান্ত, মুবাশ্শিরা মালিহা, আরিশা আরিয়ানা। (আবৃত্তিতে) আরিশা আরিয়ানা, নাজিফা চৌধুরী (তাহা), ইন্দুলেখা অগ্নি। (চিত্রাঙ্কনে) রানা তাবাসসুম তীর্ণা, আলিহা মানসুরা আহমেদ ও রোবাইদা খান এষা।

গ-বিভাগ (সঙ্গীতে) অনুমৃতা আলম প্রজ্ঞা, অংকিতা দাস, সময় কৃষ্টি সরকার। (আবৃত্তিতে) অংকিতা দাস, আনিসা আনজুম, নূর সাহিফা শৈলী। (চিত্রাঙ্কনে) অংকিতা দাস, নূর সাহিফা শৈলী ও অনুমৃতা আলম প্রজ্ঞা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here