ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে বিবাহিত যারা

0
16

খবর৭১ঃ আংশিক কমিটি গঠনের দীর্ঘ ১০ মাসের মাথায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়েছে। আর এই পূর্ণাঙ্গ কমিটি নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে বিক্ষোভ-মিছিল করেছেন পদবঞ্চিতরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মধুর ক্যান্টিন থেকে গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় এক বিক্ষোভ মিছিল বের করেন ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে পদবঞ্চিতরা।
মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে দিয়ে ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসিত) অবস্থিত সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে গিয়ে শেষ হয়। মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন তারা।

এসময় পদবঞ্চিতরা অভিযোগ করেন, বিবাহিত হয়েও অনেককে পদ দিয়েছেন শোভন-রাব্বানী। আর এজন্য পদ পাওয়া ওইসব নেতাকর্মীদের কাছ থেকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন সুবিধা আদায় করে নিয়েছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।

প্রমাণ হিসাবে পদবঞ্চিতরা যাদের নাম জানিয়েছেন তারা হলেন-কেন্দ্রীয় কমিটিতে সহ-সভাপতি পদ পাওয়া সোহানী তিথি, সাংস্কৃতিকবিষয়ক উপ-সম্পাদক পদ পাওয়া আফরিন সুলতানা লাবণী, উপ-সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক পদ পাওয়া রুশী চৌধুরী, সহ-সম্পাদক পদ পাওয়া আনজুমান আরা আনু ও সামিহা সরকার সুইটি। এরা সবাই বিবাহিত বলে জানান তারা। এছাড়াও সহ-সভাপতি ইশাত কাসফিয়া ইরাও বিবাহিত বলে অভিযোগ করছেন কেউ কেউ।

ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রের ৫-এর গ ধারা অনুযায়ী বিবাহিত ব্যক্তি ছাত্রলীগের কমিটিতে স্থান পাবেন না। গঠনতন্ত্রের সেই ৫-এর গ ধারাকে লঙ্ঘন করে এসব নেতাকর্মীদের কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান দেয়া হয়েছে জানিয়ে প্রতিবাদ করেছেন পদবঞ্চিতরা।

গত সোমবার ছাত্রলীগের ৩০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটির আনুষ্ঠানিক ঘোষণা করা হয়। পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে সহ-সভাপতি হয়েছেন ৬১ জন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন ১১ জন, সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ পেয়েছেন ১১ জন। এছাড়া বিষয়ভিত্তিক সব সম্পাদক এবং সহ-সম্পাদক ও উপ-সম্পাদকের নামও ঘোষণা করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here