ছাত্রলীগ সভাপতিকে বিবাহিত দাবি করে পদবঞ্চিত নেত্রীর স্ট্যাটাস

0
31

খবর৭১ঃ বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে পদধারী ও পদ বঞ্চিতদের মধ্যে চলছে চরম উত্তেজনা। দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে। কমিটি নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করছেন পদবঞ্চিতরা। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান না পেয়ে ফেসবুকে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শাখার নেত্রী জারিন দিয়া (ক্যান্ডেল)।

তিনি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কার্যনির্বাহী সদস্য বলে ফেসবুকে লিখেছেন।

ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রের ৫-এর গ ধারা লঙ্ঘন করে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে বেশ কয়েকজন বিবাহিত নেতাকর্মী স্থান পাওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এই নেত্রী।

কমিটিতে স্থান না পাওয়ায় ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী উদ্দেশে সোমবার রাতেই ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন তিনি।

তার স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো –

‘রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন এবং গোলাম রাব্বানী ভাই আপনাদের …. মেয়ে লাগে। বড় বড় প্রোগ্রামে মেয়েদের মুখ না দেখলে তো আপনাদের মন ভরতো না। শোভন ভাই আপনি একদিন আমাকে সবার সামনে বলছিলেন কী রে চেহারা সুন্দর আছে; তো সেজেগুজে আসতে পারো না!

আমি সেজেগুজে আসতে পারি নাই দেখে আমাকে কমিটিতে রাখলেন না?

আপনারা যেসব মেয়েকে কমিটিতে রেখেছেন তারা কয়দিন থেকে রাজনীতি করে! আপা কি জানেন? আর নিজে বিবাহিত বলে কমিটিতে দুনিয়ার বিবাহিত মেয়েদের রেখেছেন!

আর গোলাম রাব্বানী ভাই আমাকে সবার সামনে বলছিলেন দুইদিনের মেয়ে কেমনে পোস্ট পাইছো বুঝি নাই! কয়জনের ………রিপোর্ট করলেই জানা যাবে। মনে আছে গোলাম রাব্বানী ভাই? আমি তখন আপনার যোগ্য কথার জবাব দিয়েছিলাম। আজ তার শোধ নিলেন? অনেক তথ্য অপেক্ষা করছে আপনাদের জন্য।

এই বিবাহিত বিতর্কিত কমিটি মানি না; মানবো না… আমার শ্রমের মূল্য দিতে হবে আপনাদের।’

প্রসঙ্গত, সোমবার (১৩ মে) বিকালে ছাত্রলীগের ৩০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটির আনুষ্ঠানিক ঘোষণা করা হয়।

সংগঠনটির সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন জানান, আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদনের পর ৩০১ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে সহসভাপতি হয়েছেন ৬১ জন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন ১১ জন, সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ পেয়েছেন ১১ জন। এছাড়া বিষয়ভিত্তিক সব সম্পাদক এবং সহ সম্পাদক ও উপসম্পাদকের নামও ঘোষণা করা হয়।

এর আগে, ২০১৮ সালের ১১ ও ১২ মে ছাত্রলীগ ২৯ তম জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে নিজেরা কমিটি করতে ব্যর্থ হলে ৩১ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাংগঠনিক অর্পিত ক্ষমতাবলে রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনকে সভাপতি এবং গোলাম রাব্বানীকে সাধারণ সম্পাদক করে কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা করেন।

তবে কমিটির ঘোষণাকে কেন্দ্র করে সন্ধ্যায় দু দফায় দু’পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ডাকসুর তিন নেতাসহ অন্তত ৮জন আহত হয়েছেন।

হামলায় আহতরা হলেন- ছাত্রলীগের বিগত কমিটির সদস্য ও ডাকসুর বর্তমান সদস্য তানভীর হাসান সৈকত, কবি সুফিয়া কামাল হলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসুর সদস্য তিলোত্তমা শিকদার, ডাকসুর আরেক সদস্য ফরিদা পারভীন, ডাকসুর কমনরুম ও ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক বি এম লিপি আক্তারসহ কয়েকজন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here