হবিগঞ্জের মাধবপুরে ট্রেনের ছাদে পড়ে এক ব্যবসায়ীর মৃত্যু

0
57
হবিগঞ্জের মাধবপুরে ট্রেনের ছাদে পড়ে এক ব্যবসায়ীর মৃত্যু

মঈনুল হাসান রতন হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের মাধবপুরে ট্রেনের ছাদে অন্যের ঝগড়া থামাতে গিয়ে ট্রেনে কাটা পড়ে সুমন মিয়া নামে এক ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়েছে।শুক্রবার (১ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার হরষপুর রেলওয়ে স্টেশনে এ ঘটনা ঘটে।নিহত মুরগী ব্যবসায়ী সুমন মিয়া উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামের বাসিন্দা সাদেক মিয়ার ছেলে।প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রাম থেকে সিলেটগামী জালালাবাদ ট্রেনটি সকালে হরষপুর স্টেশনে থামে। এ সময় ট্রেনের ছাদে দুই ব্যক্তি ঝগড়া শুরু করে। পরে স্টেশনে অন্য একটি ট্রেনের জন্য অপেক্ষায় থাকা সুমন মিয়া তাদের ঝগড়া থামাতে ট্রেনের ছাদে উঠেন। তখন ট্রেনটি ছেড়ে দিলে তিনি লাফিয়ে নামতে গিয়ে দুটি বগির মাঝখানে পড়ে যান। এতে ট্রেনে কাটা পড়ে তার মৃত্যু হয়।হরষপুর রেলওয়ে স্টেশনের মাস্টার পরেশ আলী শিকদার সুমনের মৃত্যর খবর নিশ্চিত করে জানান, সুমন মিয়ার মুরগি নিয়ে আখাউড়া যাওয়ার কথা ছিল। তিনি অন্যের ঝগড়া থামাতে জালালাবাদ ট্রেনের ছাদে ওঠেন। এ সময় ট্রেন ছেড়ে দেয়ায় লাফিয়ে নামতে গিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।এ ব্যাপারে কাশিমনগর ফাঁড়ির ইনচার্জ মোর্শেদ আলম বলেন, ‘শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ে ফাঁড়ি ঘটনাস্থল থেকে বেশ দূরে হওয়ায় তারা বিষয়টি আমাদের জানিয়েছে। আমি সেখানে একজন পুলিশ কর্মকর্তাকে পাঠিয়েছি লাশ উদ্ধার করার জন্য।’

বাহুবলে স্কুল পড়ুয়া তরুনীর গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা
মঈনুল হাসান রতন হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের বাহুবলে ভাইয়ের সাথে ঝগড়ার জের ধরে ৮ম শ্রেণিতে পড়ুয়া স্কুল ছাত্রী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) রাত ৮টা দিকে উপজেলার মিরপুর ইউনিয়নের পশ্চিম জয়পুর গ্রামে।স্থানীয় লোকজন জানান, উপজেলার পশ্চিম জয়পুর গ্রামের সামছু চৌধুরীর কন্যা তানহা চৌধুরী ইতি স্থানীয় মিরপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮ম শ্রেণিতে লেখাপড়া করে। সে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বড় ভাই বোরহান চৌধুরীর সাথে ঝগড়া করে। ঝগড়ায় এক পর্যায়ে বোরহান চৌধুরী তার বোনকে বকুনী দেন। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে তানহা আক্তার ইতি সন্ধ্যার পর পরিবারের সকলের অগোচরে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে। রাত ৮টার দিকে পরিবারের লোকজন বিষয়টি আঁচ করতে পেরে তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে বাহুবল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন।এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে বাহুবল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ কামরুজ্জামান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, লাশ হাসপাতাল থেকে উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হবে। প্রথমিক ভাবে ঘটনাটি আত্মহত্যা বলেই ধরণা করা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here