সংসদে বিষয়টি উপস্থাপন করা হবে, সৈয়দপুরে অধিকারের সভায়-এমপি আদেল

0
99
সংসদে বিষয়টি উপস্থাপন করা হবে
সৈয়দপুরে রেল কর্তৃক বাস্তহারাদের উচ্ছেদ কার্যক্রম বন্ধের শুক্রবার রাতে দাবিতে রেলভূমিতে বসবাসকারিদের সংগঠন অধিকার আয়োজিত জরুরী সভায় বক্তব্য বলছেন সংসদ সদস্য আহসান আদেলুর রহমান আদেল। ছবিঃ মিজানুর রহমান মিলন, সৈয়দপুর থেকে।

খবর৭১ঃ

মিজানুর রহমান মিলন, সৈয়দপুর থেকেঃ সৈয়দপুরে রেলওয়ের জমিতে বসবাসকারীদের সংগঠন অধিকার’র জরুরী সভায় নীলফামারী-৪ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আহসান আদেলুর রহমান আদেল বলেছেন, রেলের জমিতে বসবাসকারীদের মাঝে দীর্ঘদিন ধরে যে উচ্ছেদ আতংক চলছে তা সমাধানের সময় এসেছে। এ বিষয়ে আগামী ৮ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া জাতীয় সংসদের অধিবেশনে কথা বলবো।

তিনি বলেন আমরা পরিষ্কার ভাষায় বলতে চাই, রেলের প্রয়োজনে আমরা জমি ছেড়ে দিব। কিন্তু তাদেরকে বলতে হবে কোন জমি প্রয়োজন। কিন্তু যেটার প্রয়োজন নেই, সে স্থানে উচ্ছেদ না করে যে যেখানে আছে সেটা বসবাসকারীদের মাঝে বরাদ্দ বা সহজ কিস্তিতে প্রদান অথবা বাৎসরিক কর বসিয়ে বরাদ্দ দেয়া হোক। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন এতে লোকসানে থাকা রেলওয়ে যেমন লাভবান হবে তেমনি আতংকে থাকা শহরবাসীও স্থায়ী সমাধান পাবে। শুক্রবার রাতে অধিকারের জরুরী সভায় তিনি ওইসব কথা বলেন। রেলওয়ে অফিসার্স ক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত এ সভায় সভাপতিত্ব করেন অধিকার’র সভাপতি ও সৈয়দপুর উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মোখছেদুল মোমিন। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য বলেন, সৈয়দপুর উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আখতার হোসেন বাদল, পৌর আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলাম বাবু, ব্যবসায়ী নেতা মো. মোস্তফা, আ’লীগ নেতা অধ্যক্ষ সাখাওয়াৎ হোসেন খোকন, সৈয়দপুর জেলা বিএনপি নেতা সামসুল আলম ও শওকত হায়াৎ শাহ, জাপা নেতা সিদ্দিকুল আলম সিদ্দিক ও আলতাফ হোসেন, আইনজীবী অ্যাড. তুষার কান্তি রায়, সাবেক কাউন্সিলর কায়সার আলী, আশরাফুল হক বাবু, আ’লীগ নেতা জোবায়দুর রহমান শাহীন, সাবেক ছাত্রনেতা প্রভাষক আব্দুল হাফিজ হাপ্পু, অধিকার সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক হাজি মো. তাসলিম প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, বাস্তুহারাদের উচ্ছেদের নামে রেলওয়ে যদি গরীবদের বাসস্থানে বুলডোজার চালায় তাহলে সকলকে সাথে নিয়ে সৈয়দপুর অচল করে দেয়া হবে। তারা বলেন আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনের মাধ্যমে দাবি আদায় করবো। বক্তারা বলেন যেখানে প্রধানমন্ত্রী কাউকে গৃহহীন দেখতে চায় না বলেই গৃহহীনদের খুঁজে খুঁজে আবাসনের ব্যবস্থা করে দিচ্ছেন সেখানে কাউকে পুনর্বাসন ছাড়া কাউকে উচ্ছেদ করার প্রশ্নই ওঠেনা। তারা সন্দেহ প্রকাশ করে বলেন রেলওয়ের কিছু অতি উৎসাহী কর্মকর্তা সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে উচ্ছেদের নামে ষড়যন্ত্র করছেন। বক্তারা এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অবগত করতে রেলমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করা হবে। বক্তারা আশা প্রকাশ করে বলেন মানবতার মা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেখানে ১২ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছেন সেখানে দেশের নাগরিককে পুনর্বাসন না করে কখনও উচ্ছেদ করতে পারেন না।

সভায় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ কর্তৃক উচ্ছেদের মাইকিং ও নিলামের বিষয়টি প্রচার করে জনমনে আতংক সৃষ্টি করায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়। সভা শেষে উচ্ছেদ বন্ধে বিভিন্ন দাবি ও কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। এসবের মধ্যে রয়েছে ৩ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান, ৪ সেপ্টেম্বর সংবাদ সম্মেলন, ৬ ও ৭ সেপ্টেম্বর সমাবেশ, ১৪ সেপ্টেম্বর মানববন্ধন কর্মসূচি। ১৫ সেপ্টেম্বর পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে সভায় জানানো হয়।এ সভায় সৈয়দপুরের সকল রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন, ব্যবসায়ীসহ গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here