মিয়ানমারের মিথ্যাচারে ‘গভীর হতাশা’ বাংলাদেশের

0
61
মিয়ানমারের মিথ্যাচারে ‘গভীর হতাশা’ বাংলাদেশের

খবর৭১ঃ রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার প্রতিশ্রুতি এড়াতে মিয়ানমার বানোয়াট প্রচারণা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে বাংলাদেশ।

বুধবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক দীর্ঘ বিবৃতিতে নেই পি দোকে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন অভিযোগ, মিথ্যাচার ও আসল তথ্যের অপব্যাখ্যা বন্ধের আহ্বান জানানো হয়। বিবৃতিতে মিয়ানমারের এই মিথ্যাচার প্রত্যাখ্যান করে ঢাকা গভীর হতাশা ব্যক্ত করে। খবর বাসসের।

বিবৃতিতে বলা হয়, রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে মিথ্যাচার বন্ধ করে মিয়ানমার সরকারকে দেয়া তাদের প্রতিশ্রুতি পূরণে মনোযোগী হওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

মিয়ানমারের আন্তর্জাতিক সহযোগিতা বিষয়ক মন্ত্রী উ কিয়াও তিনের সাম্প্রতিক মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এ বিবৃতি এসেছে।

সম্প্রতি উ কিয়াও তিন আজারবাইজাইনের বাকুতে অনুষ্ঠিত ন্যাম সম্মেলনে অভিযোগ করেন, ধর্মীয় নিপীড়ন, জাতিগত নির্মূল অভিযান ও গণহত্যার মতো শব্দ ব্যবহার করে রোহিঙ্গা সংকটের বিষয়টিকে বাংলাদেশ ভিন্নভাবে চিত্রায়িত করছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে ধর্মীয় নিপীড়ন এবং জাতিগত নিধনের বিষয়ে পর্যবেক্ষণ দিয়েছে। এটাই বাস্তবতা।

রোহিঙ্গাদের রাখাইনে ফেরা এবং সেখানে নিরাপদ ও অনুকূল পরিবেশ তৈরির বিষয়টি নিশ্চিত করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে প্রত্যাবাসন ও পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় যুক্ত করার বিষয়টি মিয়ানমারকে গুরুত্বের সঙ্গে ভাবতে বলেছে বাংলাদেশ।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘এ সংকটের সমাধান যাতে টেকসই হয়, সেজন্য বিচারহীনতার সংস্কৃতি দূর করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে সহযোগিতা করতে হবে মিয়ানমারকে।’

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ঢাকা সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর অধিকার ও ন্যায়সঙ্গত দাবিকে অবদমিত করে দেশটিকে বিশ্বের অন্যতম অভ্যন্তরীণ বাস্তুচ্যুত মানুষের (আইডিপি) দেশে পরিণত করা এবং এর মাধ্যমে প্রতিবেশী দেশে তাদেরকে শরণার্থী বানানোর জন্য মিয়ানমার কর্তৃপক্ষকে দায়ী করেছে।’

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে আরও বলা হয়, মিয়ানমারের বিপুলসংখ্যক জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত নাগরিক কয়েক দশক ধরে বিভিন্ন দেশে আশ্রয় নিয়েছে। এদের মধ্যে অল্প কিছুসংখ্যকই তাদের দেশে ফিরে গেছে। জাতিগত ও ধর্মীয় বিবেচনায় এদেরকে তাদের বাসস্থান থেকে উচ্ছেদ করা হয়েছে।

মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ রোহিঙ্গাদেরকে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া ‘অবৈধ অভিবাসী’ হিসেবে অব্যহত প্রচারণা চালানোর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে বাংলাদেশ। উপনিবেশীয় আমলে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারে অনুপ্রবেশ করে বলে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ।

বাংলাদেশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘এখন তারা নতুন করে আবিষ্কার করেছেন যে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় নাকি বিপুলসংখ্যক বাংলাদেশি মিয়ানমারে আশ্রয় নিয়েছিল।’

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এই দাবিকে সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন বলে উল্লেখ করা হয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘ইতিহাস থেকে জানা যায় যে রোহিঙ্গারা একটি আলাদা জাতিগোষ্ঠী। বিশ্বের বিভিন্ন স্থান থেকে বিভিন্ন বর্ণ ও সংস্কৃতির সমন্বয়ে গঠিত একটি জনগোষ্ঠী। এরা রাখাইন রাজ্যের আদি বাসিন্দা।’

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এর আগের দুই দফায় মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ তাদের দেশ থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদেরকে তাদের বৈধ নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে প্রত্যাবাসন করেছে। কারণ রোহিঙ্গাদের জাতীয়তা নিয়ে বিভ্রান্তির সুযোগ নেই।

এতে আরও বলা হয়েছে, ‘এই পর্যায়ে এসে রোহিঙ্গাদের পরিচয় নিয়ে বিতর্কের প্রচেষ্টা স্পষ্টত ইঙ্গিত দেয় যে মিয়ানমার এখনো তাদের জাতিগত সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীদের বিতাড়নের নীতিতেই অটল রয়েছে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here