আমলের মাধ্যমে কাটুক রমজানের শেষ সময়টুকুও

0
14

খবর৭১ঃরমজান মাসকে বলা হয় ইবাদতের বসন্তকাল। রমজান মাসে সিয়াম সাধনা, তারাবিসহ গুরুত্বপূর্ণ সব আমলের পাশাপাশি বিশেষ বিশেষ সুযোগ কাজে লাগাতে পারলে আমলের মাত্রা আরও বহুগুণ বৃদ্ধি পেতে পারে। নেকির খাতায় জমা হতে পারে অসংখ্য আমল। রমজানে এ শেষ সমযটুকুতে ইচ্ছে করলেই তাহাজ্জুদের নামাজ পড়তে পারেন। সাহরির সময় পানাহারের জন্য ঘুম থেকে সময়মত ওঠে খানাপিনা শেষ করে বাকি সময়টুকু তাহাজ্জুদে কাটানো যেতে পারে। ইচ্ছা করলেই তাহাজ্জুদের নামাজের আমলটা সহজ করা যায়। একটু আগেভাগে উঠে দু’চার রাকাত নামাজ পড়া তেমন কষ্টের কিছু নয়, কেবলই ইচ্ছার ব্যাপার।

মহিলারাও রান্নার ফাঁকে তাহাজ্জুদ নামাজ পড়ে নিতে পারেন। তাহলে তাহাজ্জুদ পড়ার একটি অভ্যাসও গড়ে উঠবে। সারা বছর যাদের ফজরের নামাজ জামাতে আদায় করতে বেগ পেতে হয়, তারা রমজানে সহজেই তা করতে পারেন। এ সুযোগে রমজানে আগে ওঠার অভ্যাস ধরে রেখে সবসময়ের জন্য এ রীতি বহাল রাখুন, তাহলেই তা অভ্যাসে পরিণত হবে।

রমজানে দিনে খাবারের ঝামেলা না থাকায় সকাল বেলায় কাজের ঝামেলাও কম থাকে। সে সময়টাকে সুবর্ণ সুযোগ হিসেবে কাজে লাগাতে পারেন। কোরআন নাজিলের মাস হিসেবে এ সময় কোরআনে কারিমের তিলাওয়াত করা যেতে পারে। ইস্তেগফার হচ্ছে সাধারণভাবে যে কোনো সময় আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাওয়া। চলতে-ফিরতে সংঘটিত গোনাহের জন্য আল্লাহর কাছে আমরা দিন শেষে অথবা গোনাহ হয়ে যাওয়া মাত্রই ইস্তেগফার করতে পারি।

দোয়া ও মোনাজাত হচ্ছে মুমিনের প্রধান হাতিয়ার। দুনিয়া ও আখেরাতের নানা সঙ্কট থেকে মুক্তির জন্য এ মোবারক মাসে আল্লাহর দরবারে খাস দিলে দোয়া করলে আমাদের জীবনে কামিয়াবির পথ রচিত হবে। আল্লাহ তায়ালার জিকির এমন এক মজবুত রজ্জু, যা সৃষ্টিকে স্রষ্টার সঙ্গে সম্পৃক্ত করে। তাঁর সান্নিধ্য লাভের পথ সুগম করে। মানুষকে উত্তম আদর্শের ওপর প্রতিষ্ঠিত করে। সরল ও সঠিক পথের ওপর অবিচল রাখে। এ কারণে আল্লাহ তায়ালা মুসলিম ব্যক্তিকে দিবা-রাত্রি গোপনে-প্রকাশ্যে জিকির করার আদেশ দিয়েছেন।

রমজানে যে আমলগুলো বেশি বেশি করা দরকার তার মধ্যে তাহাজ্জুদের নামাজ, কোরআন তিলাওয়াত, জিকির, তাওবাহ-ইস্তেগফার, দোয়া-দরুদ অন্যতম।

রমজানের শেষ দশকে কিয়ামুল লাইলের একটি বিশেষ চর্চা হয়। কিয়ামুল লাইল শব্দের অর্থ রাতের নামাজ। তারাবির নামাজ যেমন কিয়ামুল লাইলের মধ্যে পড়ে, তেমনি শেষ রাতে তাহাজ্জুদও সালাতুল লাইলের অন্তর্ভুক্ত। রমজানে যেহেতু প্রতিটি ইবাদতের সওয়াব ৭০ গুণ বাড়িয়ে দেয়া হয়, তাই এ মাসে যথাসাধ্য বেশি বেশি কোরআন তিলাওয়াত করা প্রত্যেক মুসলমানের জন্য আবশ্যক।

রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন-‘রোজা ও কোরআন কিয়ামতের দিন মানুষের জন্য সুপারিশ করবে’। (আহমাদ : হাদিস ৬৬২৬)। ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে এসেছে, জিব্রাইল (আ.) রমজানে প্রতিরাতে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতেন এবং রাসুল (সা.) তাকে কোরআন শোনাতেন। (বুখারি : হাদিস ১৯০২)।

তারাবির নামাজ রমজান মাসের একটি গুরুত্বপূর্ণ আমল। মাহে রমজানে এশার নামাজের পর দুই দুই রাকাত করে বিশ রাকাত তারাবির নামাজ আদায় করা রাসুলুল্লাহ (সা.) ও সাহাবায়ে কেরাম (রা.)-এর আমল, যা বিশুদ্ধ হাদিস দ্বারা প্রমাণিত। হাদিসে বর্ণিত, ‘যে ব্যক্তি ইমানের সঙ্গে সওয়াব হাসিলের আশায় রমজানে কিয়ামুল লাইল (সালাতুত তারাবি) আদায় করবে, তার অতীতের সব গুনাহ মাফ করে দেওয়া হবে’। (বুখারি: হাদিস ২০০৯)।

আল্লাহ তায়ালা বলেন : ‘মুমিনগণ! তোমরা আল্লাহকে অধিক পরিমাণে স্মরণ করো এবং সকাল-বিকাল আল্লাহর পবিত্রতা বর্ণনা করো। (সুরা আহজাব: ৪১-৪২)।

হাদিস শরিফে দোয়াকে বলা হয়েছে ‘ইবাদতের মগজ’। অপর হাদিসে বর্ণিত হয়েছে আল্লাহতায়ালা রমজানের প্রতিদিন ও প্রতিরাতে বহুসংখ্যক লোককে মুক্তিদান করেন এবং প্রত্যেক মুসলমানের একটি দোয়া প্রতিদিন কবুল হয়। দোয়া-মোনাজাত ও ইস্তেগফারের পাশাপাশি সহজ-সহজ জিকির ও তাসবিহ পাঠ করেও অধিক সওয়াবের অধিকারী হতে পারি। মহান আল্লাহতায়ালা আমাদেরকে বেশি বেশি নেক আমলের মাধ্যমে রমজান অতিবাহিত করার তাওফিক দান করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here