আইন অমান্য করায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির জরিমানা

0
210
সৈয়দপুরে বিভিন্ন মামলার আসামি কুখ্যাত মনোয়ার গ্রেফতার

খবর৭১ঃ

মিজানুর রহমান মিলন, সৈয়দপুর থেকেঃ প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সরকারি নির্দেশনা অমান্যকারীসহ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে মাঠে রয়েছে সৈয়দপুরে উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসন। গতকাল শনিবার ও আজ রবিবার সৈয়দপুর উপজেলা প্রশাসন ও থানা প্রশাসন যৌথভাবে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক ও ব্যবসা কেন্দ্রগুলোতে অভিযান চালায়। এ সময় ওষুধের দোকান, মুদি দোকান ও কাঁচা বাজার দোকান ব্যতীত অন্যান্য যেসব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলার চেষ্টা করেছিল তা বন্ধ করে দেয়।

সে সাথে রাস্তায় চলাচলকারী পথচারীসহ মোড়ে মোড়ে অবস্থানরত একের অধিক মানুষকে ছত্রভঙ্গ করে নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থানের জন্য নির্দেশ প্রদান করা হয়। এতে পুরো শহরে জনসমাগম কমে যায়। গতকাল শনিবার থেকে আজ রবিবার দু দিনে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে দোকান চালু, হেলমেট ও মাস্ক ছাড়া মোটরসাইকেল চালানো, প্রয়োজন ছাড়া অযথা চলাফেরা করায় ভ্রাম্যমান আদালতে ২৪ টি মামলা অভিযান পরিচালনা করা হয়।

এ অভিযানে বিভিনৃন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির কাছ থেকে ১১হাজার ছয়শত টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। এছাড়া বেশ কয়েক জনকে কিছু সময় দাড় করিয়ে শাস্তি দেয়া হয়। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নাসিম আহমেদ, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) পরিমল কুমার সরকার। এসময় উপস্থিত ছিলেন সৈয়দপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অশোক কুমার পাল ও থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল হাসনাত খানসহ উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

অভিযোগ রয়েছে সৈয়দপুর শহরের বিভিন্ন সড়কে কিছু কিছু দোকানপাট গত কয়েকদিন থেকে সরকারের নির্দেশনা অমান্য করে খোলা রেখে ব্যবসা বাণিজ্য পরিচালনা করা চেষ্টা করা হয়েছিল। মানুষজনও দলে দলে বের হয়ে বাজার, রাস্তার মোড়সহ বিভিন্ন স্থানে জটলা করে অবস্থান করছিল। এ নিয়ে সচেতন ব্যক্তিরা বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনের পদক্ষেপ দাবি করে সোস্যাল মিডিয়ায় সোচ্চার হয়ে উঠে। এর পরিপ্রেক্ষিতে উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন গতকাল লোকজনকে সরাতে মাঠে নামে। এসময় সরকারি আদেশ অমান্যকারী কিছু ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মালিককে জরিমানা করা হয়।

এ ব্যাপারে সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. নাসিম আহমেদ ও উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) পরিমল কুমার সরকার জানান, সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক আগামী ৯ এপ্রিল পর্যন্ত দোকানপাট বন্ধ থাকবে এবং জনসমাগম করা যাবে না। শুধু ওষুধ, মুদি ও কাঁচা তরিতরকারির দোকান খোলা থাকবে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এ আদেশ বলবৎ থাকবে। তিনি সৈয়দপুরবাসীকে এ নির্দেশনা মেনে ঘরে অবস্থানের মাধ্যমে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনসাধারণের সহযোগিতা কামনা করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here